শিরোনাম

৫০ লাখ টাকা চাঁদাদাবির অভিযোগে আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার : | শুক্রবার, ০৪ মে ২০১৮ | পড়া হয়েছে 589 বার

৫০ লাখ টাকা চাঁদাদাবির অভিযোগে আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা

৫০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামীলীগ নেতা ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
জেলার সরাইল উপজেলার অরুয়াইল গ্রামের বাসিন্দা আমির হোসেন বাদী হয়ে গত ৩০ এপ্রিল ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট (২য় আদালত) আদালতে অভিযোগটি দায়ের করেন।

বিজ্ঞ ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ জাহিদ হোসাইন অভিযোগটি এফআইআর হিসেবে গন্য করে তদন্ত করার জন্য সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করেন।
মামলার আসামীরা হলেন উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়নের ধামাউড়া গ্রামের বাসিন্দা ও অরুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম-(৩৮) তার ভাই মোঃ জহিরুল ইসলাম-(২৮)ও মোঃ তাজুল ইসলাম-(৪৫)।


আদালতে দায়েরকৃত অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ২৭ এপ্রিল মামলার বাদি আমির হোসেন ও তার মাতা অরুয়াইল থেকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকসায় করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যাওয়ার পথে সরাইল উপজেলার কুট্টাপাড়া সংলগ্ন সরাইল-নাসিরনগর ব্রীজের উপর অভিযুক্তরা একটি মাইক্রোবাসযোগে এসে আমীর হোসেন ও তার মাকে বহনকারী অটোরিকসার গতিরোধ করে। পরে আসামীরা মাইক্রোবাস থেকে নেমে বাদীর কাছে৫০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। আসামী শফিকুল ইসলাম ৭ দিনের মধ্যে দাবিকৃত টাকা না দিলে বাদীর সন্তান ও তার মাতাকে অপহরন করে দাবিকৃত চাঁদা আদায় করবে বলে হুশিয়ারি দেন। অন্যথায় অরুয়াইল বাজারে অবস্থিত তাদের মার্কেট, জমিজমা, বাড়িঘর দখল করার হুমকি দেয়া হয়। পরে স্থানীয় লোকজন স্বাক্ষীসহ এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে অরুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও অভিযুক্ত শফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এটি তার বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র। তিনি বলেন, মামলার বাদি, স্বাক্ষী ও তার মোবাইল ফোনের কল লিস্ট পরীক্ষা করলেই প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।
এ ব্যাপারে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মফিজ উদ্দিনের সাথে কথা বলার জন্য তার সরকারি মোবাইল ফোনে কয়েকদফা চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১