শিরোনাম

ঘাটিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের

৪ ছাত্রীকে অপহরণ কালে মহিলাসহ তিন৩ জন আটক

স্টাফ রিপোর্টার : | বৃহস্পতিবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | পড়া হয়েছে 155 বার

৪ ছাত্রীকে অপহরণ কালে মহিলাসহ তিন৩ জন আটক

সদর উপজেলার ঘাটিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪ ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার কালে মহিলাসহ তিন অপহরণকারীকে আটক করেছে পুলিশ।
স্কুল সূত্র জানায়, গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের বরিশল গ্রামের ৪স্কুল ছাত্রী ঘটিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে অপহরণকারীরা তাদেরকে কৌশলে সিএনজিচালিত অটোরিক্সায় তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় স্কুল ছাত্রী লিমা অটোরিক্সা থেকে লাফিয়ে নেমে চিৎকার করলে এলাকার লোকজন ১ মহিলা সহ ৩ অপহরণকারীকে আটক করে পরে সদর থানার পুলিশে সোপর্দ করে অপর ছাত্রীদের উদ্ধার করে ।
ছাত্রীরা হচ্ছে ঘাটিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শেণীর ছাত্রী লিমা আক্তার (৮) ও সাদিয়া আক্তার, তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী শান্তা ও জান্নাত। অসুস্থ্য অবস্থায় লিমাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করার পর তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা প্রেরণ করা হয়। অপহরণকারী চক্রের আটক সদস্যরা হচ্ছে সদর উপজেলার রাধিকা গ্রামের দারগ আলীর ছেলে হিরন মিয়া (২০), আবির খানের ছেলে শরিফ খান (২২), অটোরিক্সা চালক এবং নরসিংসার গ্রামের তামান্না আক্তার (২০)।
প্রত্যক্ষদর্শী ঘাটিয়ারা গ্রামের জাহেদ মিয়া বলেন, লিমা চলন্ত অটোরিক্সা থেকে লাফ দিয়ে পরে যাওয়ার দৃশ্য দেখে পিছনে থাকা অটোরিক্সা চালক কবির মিয়া তার অটোরিক্সা নিয়ে অপহরণকারীদের অটোরিক্সাটির সামনে গিয়ে গতিরোধ করে। পরে এলাকার লোকজন স্কুল শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করে অপহরণকারীসহ স্কুলে নিয়ে যায়। পরে জনতা ও স্কুল কর্তৃপক্ষ সদও থানার পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ পৌছে অপহরণকারিদেরকে থানায় নিয়ে যায়।
ঘাটিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাদিয়া আফরিন বলেন, পুলিশের সামনে সাকিলা শাস্তা ও জান্নাত বলে, তাদেরকে জোর করে অটোরিক্সায় উঠায় স্কুলে নামিয়ে দেবে বলে। কিন্তু অটোরিক্সাটি স্কুলের সামনে আসার পর তাদেরকে না নামিয়ে চলে যেতে থাকলে তখন লিমা অটোরিক্সা থেকে লাফ দিয়ে নেমে যায়। খবর পেয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বনিক, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবদুস সামাদ আকন্দ ও উপজেলা সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জহিরুল ইসলাম লিমাকে সদর হাসপাতালে দেখতে যান।
এ ব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বনিক বলেন, জেলা প্রশাসক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস অসুস্থ্য লিমা আক্তারের চিকিৎসার দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন।
সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নবীর হোসেন বলেন, অপহরণকারী চক্রের ৩ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। তদন্তক্রমে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১