শিরোনাম

নাসিরনগর উপজেলা জাতীয় পার্টির আয়োজনে নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিনে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের

১৯৯০ সালে ক্ষমতা লোভ ত্যাগ করে জাতীয় পার্টি নির্বাচন দিয়েছিল

নাসিরনগর প্রতিনিধি : | শনিবার, ১০ মার্চ ২০১৮ | পড়া হয়েছে 172 বার

১৯৯০ সালে ক্ষমতা লোভ ত্যাগ করে জাতীয় পার্টি নির্বাচন দিয়েছিল

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেছেন, নাসিরনগরের উপ-নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী রেজোওয়ান আহমেদের প্রতীক লাঙ্গলের পক্ষে আল্লাহতালার অশেষ রহমতে ভোটের জোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। তাই ঐক্যবদ্ধভাবে সকলকে কাজ করে বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে। দেশের মানুষ দু’দলকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। তাই শান্তিতে থাকতে হলে অবশ্যই জাতীয় পার্টির বিকল্প নেই। নাসিরনগরে এরশাদের উন্নয়নের কথা বিবেচনা করে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী রেজোওয়ান আহমেদেকে বিজয়ী করার আহবান জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর) আসনে উপ-নির্বাচনে উপলক্ষে জাতীয় পার্টির উদ্যোগে আজ শনিবার (১০.০৩.২০১৮) দুপুরে স্থানীয় আশুতোষ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জাপার মনোনীত প্রার্থী রেজোওয়ান আহমেদের নির্বাচনী জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। স্থানীয় জাপার নেতা হাজ্বী ওবায়েদুল হক রেনুর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা কাজী মামুনুর রশীদ, শাহ জামাল রানা, রেজাউল হক ভূঁইয়াসহ জেলা ও উপজেলা দলীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।


জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, ১৯৯০ সালে জাতীয় পার্টি (জাপা) যখন ক্ষমতায় ছিলো, তখন আলাপ আলোচনার মাধ্যমে ক্ষমতার লোভ ত্যাগ করে পল্লীবন্ধু হুসাইন মুজাম্মদ এরশাদ নির্বাচন দিয়েছিলেন। ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার জন্য উনি (এরশাদ) কোনো রক্তপাত করেননি।

জি এম কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি রক্তপাতের রাজনীতি বিশ্বাস করে না। জাপাই একমাত্র শান্তির কথার বলে। গায়ের জোরে সরকারে থাকা এবং সরকার থেকে বের করে ক্ষমতা দখলের রাজনীতি জাপা করে না। যেকোনো দলের বিপদ-আপদে আমরা থাকি। তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশের মানুষ উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে কোনো সমঝোতার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।

নাসিরনগরে উপ নির্বাচন নিয়ে জি.এম কাদের বলেন, আমরা আ.লীগ সভানেত্রীর কাছে অনুরোধ করব আপনার নেতাকর্মীদের থামান। তারা নাম ব্যবহার করে লাঙ্গলের ভোট ডাকাতি করার চেষ্টা করছে। যা আপনার দল ও আপনার সুনাম নষ্ট করছে। তিনি নির্বাচন কমিশনকে বলেন, আপনারা দয়া করে নাসিরনগরে নির্বাচনের মাধ্যমে আস্থা তৈরি করুন।

উল্লেখ্য, গত ১৬ ডিসেম্বর মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী ছায়েদুল হকের মৃত্যুতে এ আসনের এমপি পদ শূন্য হয়। আগামী ১৩ মার্চ এ আসনের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০