শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৃথক ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে

স্কুল ছাত্রীর বাল্য বিয়ে বন্ধ ॥ অপ্রাপ্ত বয়স্ক কনের মাকে জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার | মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০ | পড়া হয়েছে 200 বার

স্কুল ছাত্রীর বাল্য বিয়ে বন্ধ ॥ অপ্রাপ্ত বয়স্ক কনের মাকে জরিমানা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে দশম শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীর বিয়ে বন্ধ অপর দিকে অপ্রাপ্ত বয়স্ক এক কিশোরীকে বিয়ে দেয়ার দায়ে কনের মাকে জরিমানা করা হয়েছে।

গত সোমবার (৩ আগস্ট, ২০২০) জেলার কসবা উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের চারুয়া গ্রামে এবং আশুগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের বড়তল্লা গ্রামে পৃথক এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত সোমবার বিকেলে কসবা পৌর এলাকার বিদেশ ফেরত এক যুবকের সাথে উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের চারুয়া গ্রামের চারুয়া মাদরাসার দশম শ্রেনীর এক ছাত্রীর বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো। স্থানীয়দের মাধ্যমে বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হাসিবা খান বিয়ে বাড়িতে গিয়ে হাজির হন।
পরে তিনি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেন ও মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না মর্মে ওই ছাত্রীর বাবার কাছ থেকে মুচলেকা আদায় করেন।


এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকারী উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট হাসিবা খানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বাল্য বিয়ের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে।
অপর দিকে ঈদের ছুটির সময় আশুগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের বড়তল্লা গ্রামের প্রবাসী কামাল মিয়ার স্ত্রী রুবিনা আক্তার তার ১৩ বছর বয়সী কন্যাকে চুপিসারে বিয়ে দেন।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি জানতে পেরে গত সোমবার বিকেলে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ নাজিমুল হায়দার কনের বাড়িতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে কনের মাতা রুবিনা আক্তারকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ নাজিমুল হায়দার জানান, অপ্রাপ্ত বয়সী কন্যাকে বিয়ে দেয়ার দায়ে প্রবাসী কামাল মিয়ার স্ত্রী রুবিনা আক্তারকে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০