শিরোনাম

উপজেলা পরিষদের সামনে দিয়ে রাস্তার দাবিতে

সরাইলে তিন গ্রামবাসীর বিক্ষোভ মিছিল- স্মারকলিপি প্রদান

সরাইল প্রতিনিধি | রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 90 বার

সরাইলে তিন গ্রামবাসীর বিক্ষোভ মিছিল- স্মারকলিপি প্রদান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইলে উপজেলা পরিষদ চত্বরের সামনে দিয়ে রাস্তা দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে তিন গ্রামের বাসিন্দারা।
রোববার (২৯ নভেম্বর ২০২০) বেলা ১১টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের নতুন হাবেলীপাড়া, আরিফাইল ও স্বল্পনোয়াগাঁও গ্রামের লোকজন উপজেলা চত্বরে বিক্ষোভ মিছিল করে।

বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন আরিফাইল গ্রামের বাসিন্দা ও উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুল জব্বার, একই গ্রামের বাসিন্দা যুবলীগ নেতা মাহফুজ আলী, যুবদল নেতা মশিউর রহমান প্রমুখ।


বিক্ষোভ মিছিল চলাকালে উপজেলা সদরের সড়কে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির দায়ে পুলিশ অন্তর-(১৮) ও লিটন-(১৮) নামের দুই যুবককে আটক করে পরে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাবও মোতায়েন করা হয়।

মিছিল শেষে বিক্ষোভকারীরা ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি স্মারকলিপি প্রদান করে।
উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন জানায়, এটা প্রশাসন পাড়া। এখানে কোন রাস্তা নেই। অরক্ষিত থাকায় এতোদিন লোকজন চলাচল করতো।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, উপজেলা প্রশাসন চত্বরে কোনো প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা না থাকায় এতোদিন গ্রামবাসী উপজেলা চত্বরের সামনে দিয়ে অবাধে চলাফেরা করে আসছিলেন।

সম্প্রতি প্রশাসন পাড়ায় চুরি, মাদক সেবন ও বখাটেদের উৎপাত বেড়ে যাওয়ায় প্রশাসন পাড়ার কর্মকর্তা-কর্মচারিদের মধ্যে বিরাজ করছে আতঙ্ক উৎকন্ঠা।

বাধ্য হয়ে উপজেলা পরিষদ চত্বরের সামনের রাস্তাটি গত ২৫ নভেম্বর টিনের বেড়া নিয়ে বন্ধ করে দেয় উপজেলা প্রশাসন। এতে ফুঁসে উপজেলা সদরের তিন গ্রামের বাসিন্দা।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ফারজানা প্রিয়াংকা সাংবাদিকদের বলেন,‘ যেখানে বেড়া দেওয়া হয়েছে তা জনসাধারণের কোনো রাস্তা নয়। সেখানে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা না থাকায় গ্রামের লোকজন অবাধে চলাফেরা করতো। প্রশাসন চত্বরের নিরাপত্তার জন্য বেড়া দেওয়া হয়েছে। এর আগে তাদের জন্য অর্ধকোটি টাকা খরচ করে একটি বিকল্প পথের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাই উপজেলা প্রশাসন চত্বরের মাঝখান দিয়ে গ্রামবাসীর অবাধ চলাফেরা করতে পারে না। আইনকে আবেগ দিয়ে দেখার কোন সুযোগ নেই।

এ ব্যাপারে সরাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর বলেন এখানে কারো কোনো নিরাপত্তা নেই। গত তিন মাসে উপজেলা প্রশাসনের অধিকাংশ দপ্তরে চুরির ঘটনা ঘটেছে। অরক্ষিত জায়গা দিয়ে চুর ও মাদকসেবীরা প্রবেশ করে। তাই উপজেলা পরিষদের সিদ্ধান্তের আলোকে রাস্তাটি বন্ধ করা হয়েছে। তাদেরকে বিকল্প রাস্তা দিয়েই চলাচল করতে হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১