শিরোনাম

সম্মিলিত চেষ্টায় তিতাস বয়ে চলুক ঐতিহ্যের ছন্দে, রূপ সৌন্দর্যে

-------------------------------------------তিন্নি রহমান | শুক্রবার, ০৮ জানুয়ারি ২০১৬ | পড়া হয়েছে 1372 বার

সম্মিলিত চেষ্টায় তিতাস বয়ে চলুক ঐতিহ্যের ছন্দে, রূপ সৌন্দর্যে

একটি সুস্থ সুন্দর জীবনের জন্য প্রয়োজন একটি পরিচ্ছন্ন ও নির্মল পরিবেশ। আর পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ইমানের ও অংশ। তবে আজ তিতাস নদীর পাড়ে ময়লা আবর্জনার স্তূপ যে হারে বাড়ছে তাতে জনজীবন নিঃসন্দেহে বিপর্যয়ের মুখোমুখি। তিতাসের তীরে বসবাসকারীরাই সবচেয়ে বেশি তাদের জৈব অজৈব সকল আবর্জনা নির্বিচারে নদীর পাড়ে নিক্ষেপ করছে। এছাড়া শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা আবর্জনা নদীর তীরের এই ময়লার স্তূপকে আরও বিশাল থেকে বিশালতর করছে। হায়রে তিতাস! কোথায় গেল আজ তার জৌলুস আর রুপ যৌবন। আজ তিতাস হারাচ্ছে তার বিশুদ্ধতা, নির্মলতা আর পরিচ্ছন্নতা। তিতাস নদী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অহংকার। অথচ আজ এই নদীর পাড় হচ্ছে আবর্জনার মহা স্তূপ। একদিন এই তিতাসের তীরে বসলে জুড়িয়ে যেত মন প্রাণ। অথচ আজ তিতাসের পাড় দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় বিষাক্ত হাওয়া আর দুর্গন্ধের জন্য আটকে যায় মানুষের দম নিঃশ্বাস। যে নদীর জলরাশি আমাদের প্রাত্যহিক প্রয়োজন মেটায়, আজ একটু সচেতনতার অভাবে অজ্ঞতার বশবর্তী হয়ে মানুষ এই নিষ্পাপ নদীটিকে চরমভাবে বিষাক্ত করছে। নদীর তীরে গড়ে উঠা এই আবর্জনা স্তূপ থেকে ছড়িয়ে পড়ছে জীবানুবহনকারী মশা মাছি । আর এই মশা মাছি মহামারি আকারে ছড়িয়ে দিচ্ছে অনেক প্রাণঘাতী রোগের। আর এই সকল রোগের সর্বোচ্চ শিকার হচ্ছে নিষ্পাপ শিশুরা। বাঁচাতে হবে তিতাসকে, ফেরাতে হবে তিতাসের যৌবনকে, রক্ষা করতে হবে জনজীবনকে। চলুন সবাই সম্মিলিত প্রয়াসে তিতাসকে আর তিতাসের পাড়কে রক্ষা করি দুষনের কবল থেকে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০