শিরোনাম

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূণ্যস্নান ত্রিবেনী মেলা শুরু

প্রতিনিধি | মঙ্গলবার, ০৫ এপ্রিল ২০১৬ | পড়া হয়েছে 654 বার

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূণ্যস্নান ত্রিবেনী মেলা শুরু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার খড়মপুর গ্রামে তিতাস নদীর মোহনায় কৃষ্ণপক্ষের ত্রয়োদশী তিথিতে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পূণ্যস্নান ও ত্রিবেনী মেলা শুরু হয়েছে।
মঙ্গলবার ৫ এপ্রিল ভোর থেকে শুরু হওয়া এ স্নানোৎসব ও মেলা চলবে দিনব্যাপী।
জানা গেছে, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সর্বশেষ রাজা বীরবিক্রম মানিক্য বাহাদুর নদীর এ স্থানে স্নানের প্রচলন করেছিলেন। সেই থেকে প্রতিবছরই পূণ্যস্নান করতে স্থানীয় সনাতন ধর্মাবলম্বীসহ আশপাশের উপজেলা থেকে হিন্দু ধর্মের লোকজন এ ঘাটে আসেন।
মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিন দেখা যায়, রেলসড়কের পশ্চিম পাশে তিতাসের মোহনায় কড়ই তলার ঘাটে শত শত পূণ্যার্থীর ভীড়। পাপ মোচন ও পরিবার পরিজনদের মঙ্গলার্থে তারা এ ঘাটে স্নানে নামেন।
আখাউড়া পৌর এলাকার  থেকে স্নান করতে আসা ঝর্ণা ঘোষ বলেন, পূণ্য লাভের আশায় এবং নিজের ও স্বামী-সন্তানের কল্যাণার্থে স্নান করতে এখানে এসেছি।
একই এলাকার স্বপ্না ঘোষ বলেন, আজকে পূণ্য তিথী। তাই জা, বোন ও বোনের মেয়েসহ ১০/১২ জন এসেছি। যা পাপ আছে তা তিতাসে বিসর্জন দিতে।
পার্শ্ববর্তী বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তি গ্রাম থেকে আসা অরুন ভৌমিক ও যমুনা রাণী দাস বলেন, প্রয়াত মা-বাবার মঙ্গলার্থে পূণ্যস্নানে এসেছি।
এদিকে পূণ্যস্নান উপলক্ষে কল্লা শহীদ মাজার সংলগ্ন উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে বসেছে মেলা। মেলায় কৃষিজ পণ্যসহ মাটির জিনিসপত্র, বাঁশ-বেত সামগ্রী, খেলনা, মুড়ি-মুড়কি, হাঁড়ি-পাতিল, দা-ছুরি-চাকুসহ গৃহস্থালি জিনিসপত্রের নানা পসরা বসেছে।
দূর-দূরান্ত থেকে স্নান ও মেলায় যারা আসেন তারা যাতে নির্বিঘ্নে অংশ নিতে পারেন সেজন্য প্রতিবছরই কমিটির পক্ষ থেকে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। কমিটির পক্ষ থেকে সমবেতদের জন্য দুপুরের খাবারের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০