শিরোনাম

শিক্ষার্থীর হাত ভাঙ্গার ঘটনা তদন্তে প্রমাণিত : শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থার সুপারিশ

সরাইল প্রতিনিধি : | বৃহস্পতিবার, ১৫ মার্চ ২০১৮ | পড়া হয়েছে 150 বার

শিক্ষার্থীর হাত ভাঙ্গার ঘটনা তদন্তে প্রমাণিত : শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থার সুপারিশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইলের দেওড়ায় সহকারি শিক্ষক মনিজুর রহমান কর্র্তৃক শ্রেণি কক্ষে শিশু শিক্ষার্থী মো. ইনজামুল হক চৌধুরীর হাত ভেঙ্গে দেয়ার ঘটনাটি তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। মনিজুর রহমানের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও মাউশি’র মহা পরিচালকের কাছে লিখিত সুপারিশ করেছেন নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ইসরাত। সেই সাথে সাময়িক বরখাস্তের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন কমিটির সভাপতি মো. আরমান মিয়াকে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার দফতর সূত্রে জানা যায়, গত ৫ মার্চ সোমবার দেওড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ইনজামুলকে ডাষ্টার দিয়ে আঘাত করে হাতের কনুই ভেঙ্গে দিয়েছেন সহকারি শিক্ষক মনিজুর রহমান। ৬ মার্চ ছাত্রের পিতা সারোয়ার আহমেদ ছেলেকে শারিরীক ভাবে নির্যাতন করে হাত ভেঙ্গে দেয়ার ঘটনার আইনগত বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ইসরাতের কাছে লিখিত আবেদন করেন।


নির্বাহী কর্মকর্তা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে ঘটনাটি সরেজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। গত ৮ মার্চ বৃহস্পতিবার তদন্তকারী কর্মকর্তা বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখেন, কোন আবেদন ছাড়াই অনুপস্থিত সহকারি শিক্ষক মনিজুর রহমান। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও একাধিক অভিভাবকের সাথে আলোচনা করে তিনি ঘটনার সত্যতা পান। যা ১৯৭৯ খ্রিষ্টাব্দের সরকারি কর্মচারীর আচরণ বিধিমালার পরিপন্থি ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ফিরে বিবরণ উল্লেখ করে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে। নির্বাহী কর্মকর্তা তদন্ত প্রতিবেদনের সাথে একমত পোষণ করে শিক্ষার্থীর হাত ভেঙ্গে দেয়ার দায়ে সহকারি শিক্ষক মনিজুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করে পাঠিয়েছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে। যেহেতু ওই শিক্ষক দ্বারা শিক্ষার্থীদের শারিরীক মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে, বিদ্যালয়ের শিক্ষাবান্ধব পরিবেশও বিঘিœত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সেহেতু শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে এবং অনুকূল পরিবেশ বজায় রাখার নিমিত্তে সহকারি শিক্ষক মনিজুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্তের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার লিখিত নির্দেশ দিয়েছেন পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. আরমান মিয়াকে। মাউশি’র মহাপরিচালকের পাশাপাশি এ বিষয়টির অনুলিপি প্রেরণ করে অবহিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক এবং কুমিল্লা  মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ইসরাত বলেন, এটা গর্হিত অপরাধ। বিধি অনুসারে সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়া উচিত। আমরা প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থাই গ্রহণ করছি।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০