শিরোনাম

শসার বাম্পার ফলন :হাতবদলে ঠকছে চাষি

বিশেষ প্রতিনিধি : | বুধবার, ০৪ এপ্রিল ২০১৮ | পড়া হয়েছে 585 বার

শসার বাম্পার ফলন :হাতবদলে ঠকছে চাষি

পরিশ্রম আর মূলধন বিনিয়োগ করে শসা উৎপাদন করছেন ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার চাষিরা। কিন্তু লাভ যাচ্ছে সব মধ্যস্বত্বভোগীর পেটে! ভোক্তারা ৩০ টাকায় প্রতিকেজি শসা কিনলেও চাষির পকেটে ঢুকছে মাত্র ৮-১০ টাকা।

হাতবদলে দাম দুই থেকে তিনগুণ হলেও ঠকছেন মাঠের চাষি। ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার বিভিন্ন শসা বাজার ঘুরে দেখা যায় এ চিত্র। এ উপজেলায় শসার বাম্পার ফলন হলেও ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না চাষি।


তারাকান্দা উপজেলা সদর থেকে কয়েক কিলোমিটার পথ এগোলেই গোয়াতলা শসা বাজার। শসার ভরা মৌসুমে বাজারটি জমজমাট। প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এখানকার চকনাপাড়া, গোয়াতলা, কাকনী, শিমুলিয়া, বারইপানাসহ বিভিন্ন গ্রামে ক্ষেত থেকে শসা তুলে মাঠে জড়ো করেন চাষিসহ এর সাথে সংশ্লিষ্টরা।

অনেকেই আবার সরাসরি স্থানীয় বাজারে পাইকারদের কাছে নিয়ে আসছেন। মাপাজোপের কাজ শেষ হতেই পানিতে ধুয়ে শসা বস্তাবন্দি করা হচ্ছে। ট্রাক, পিকআপে করে এ শসা চলে যাচ্ছে ময়মনসিংহসহ বিভাগের বিভিন্ন বাজারে।

পাইকার ও আড়তদারদের পদচারণায় গোয়াতলা বাজারটি সরগরম। স্থানীয়দের দেওয়া তথ্যমতে, প্রতিদিন বাজারটিতে গড়ে দেড় থেকে দুই হাজার মণ শসা কেনা বেচা হয়।

গত বরিবার বিকেলে স্থানীয় তারাকান্দা উপজেলার এ বাজারে পাইকারি বিক্রেতা জানান, শসা বেশ সুস্বাদু সবজি। সালাদে শসার কদর যেমন রয়েছে তেমন পুষ্টিগুণেও এটি অনন্য। স্বল্প পুঁজি আর অল্প পরিশ্রম শসা চাষিদের সফলতার মন্ত্র।

তিনি জানান, চাষিদের কাছ থেকে ৮ থেকে ১০ টাকা কেজিতে শসা কেনা হচ্ছে। ময়মনসিংহের বিভিন্ন বাজারে সেই শসাই বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজিতে।

তবে বিভিন্ন ব্যবসায়ীর দাবি, বস্তা কেনা থেকে শুরু করে পরিবহন ও শ্রমিক খরচের পর লাভের অঙ্কটা খুব বেশি নয়।

কৃষকরা জানান, ফলন ভালো হলেও পয়সা পাচ্ছেন না তারা।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১