শিরোনাম

প্রথম আলোর বন্ধু সভার উদ্যোগে

শতাধিক সুবিধাবঞ্চিত শিশুর মধ্যে নতুন জামা বিতরণ

| সোমবার, ০৩ জুন ২০১৯ | পড়া হয়েছে 286 বার

শতাধিক সুবিধাবঞ্চিত শিশুর মধ্যে নতুন জামা বিতরণ

শারীরিক প্রতিবন্ধী নয় বছর বয়সী ইমরান মিয়া ও তার ভাই ইমন মিয়া (৪)। বাবা হেলাল মিয়া রিকশা চালক। দুই প্রতিবন্ধী সন্তানকে রিকশা চালিয়ে যা পান তাতে চিকিৎসা ও সংসারের খরচ চালান। সন্তানের চিকিৎসার খরচ ও দু’মুঠো ভাতের জন্যই তার নিরন্তর সংগ্রাম। সেখানে তিন ভাইবোনের জন্য ঈদে নতুন জামা কেনাটা অনেকটা আকাশের চাঁদ স্পর্শ করার মতো।
শনিবার বিকেলে স্থানীয় শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরে রঙিন নতুন জামা বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন

করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভা। ঈদের আগে সুবিধাবঞ্চিত নতুন রঙিন জামা পরিয়ে দিলেন প্রথম আলো ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সদস্যরা। ১০৩ জন শিশুর মাঝে নতুন জামা বিতরণ করা হয়। দুপুর থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কেউ কেউ একা নিজে আর কেউ কেউ মায়ের সাথে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরে ভিড় জমাতে থাকে। পোশাকের মাপ অনুযায়ী বন্ধুসভার সদস্যরা প্রতিটি শিশুকে একটি করে নতুন জামা পরিয়ে দেন। ঈদের আগে এই নতুন জামা পেয়ে ওদের আনন্দ দ্বিগুন হয়ে যায়। শিশুদের মুখে ফুটে ওঠে অনাবিল হাসি।


বন্ধুসভার সহ-সভাপতি ইকবাল হোসেন বলেন এক সপ্তাহ ধরে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের তালিকা প্রস্তুত করেন বন্ধুসভার সদস্যরা। পরে প্রত্যেক শিশুর গায়ের মাপ নিয়ে প্রত্যেকের জন্য বাছাই করে একটি করে নতুন জমা কিনা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রঙিন জামা পেয়ে খুশি সুবিধাবঞ্চিত শতাধিক শিশু সন্তানদের গায়ে নতুন পোশাক দেখে আনন্দে আত্মহারা শিশুরা ও তাদের অভিভাবকরা। রিকশা চালক হেলাল মিয়া বলেন, প্রতিবন্ধী সন্তানদের নিয়ে খুব অসহায় হয়ে পড়েছে। তাদের চিকিৎসা এবং সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয়। তিনি বলেন, ‘এইবার ঈদে বাচ্চারা কইছিল, আব্বা, নতুন জামা কিনা দিবা না? আমি চুপ করে ছিলাম। ওদের আম্মার লগে কথা কইলাম। ওর আম্মায় কইল, এইবার ঈদে নতুন জামা ফিন্দা লাগব না। পরে আপনেরা ওগের জমা পরিয়ে দিলেন। আমি মেলা খুশি হইছি। কাপড়গুলা খুব সুন্দর অইছে’ রঙিন জামা বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার, জেলা পরিষদ সদস্য জহিরুল ইসলাম ভূইয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ বাহারুল ইসলাম মোল্লা, সাংবাদিক আব্দূন নূর, রিয়াজ উদ্দিন জামি, নিয়াজ মুহাম্মদ খান বিটু, সায়েদাবাদ আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের ইংরেজী প্রভাষক ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিল্পকলা একাডেমী ওসমান গণি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইউনাইটেড কলেজের উদ্যোক্তা পরিচালক হারুণ অর রশিদ ও শাহিন মৃধা, প্রথম আলো ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ও বন্ধুসভার উপদেষ্টা শাহাদৎ হোসেন, ঢাকা মহানগর বন্ধুসভার অর্থ সম্পাদক নাওমী ফারিহা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাবরিনা জেবিন সেঁজুতি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া বন্ধুসভার সহসভাপতি ইকবাল হোসেন, আকিল মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক মাইনউদ্দিন রুবেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদ হোসেন, আরেফিন শোভন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান, সদস্য শাহাদাত হোসেন ও আনিকা ইসলাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজ বন্ধুসভার করবি চৌধুরী, যুগ্ম আহবায়ক মুনমুন আক্তার, সদস্য মোকররমা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ বন্ধুসভার, আহবায়ক সোহান মাহমুদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে অতিথিরা বলেন, প্রথম আলো সব সময় ব্যতিক্রম কাজ করে। শিশুদের মুখে হাসি ফোটানোর চেয়ে ভালো কোনা কাজ হতেই পারে না। প্রত্যেকটা
কাপড় অনেক সুন্দর। বন্ধুসভার সদস্যরা সত্যি অসাধারণ কাজ করেছে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০