শিরোনাম

রমজান মাস আল্লাহর দরবারে কান্নাকাটির মাস

মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান | শুক্রবার, ০৮ জুন ২০১৮ | পড়া হয়েছে 440 বার

রমজান মাস আল্লাহর দরবারে কান্নাকাটির মাস

দেখতে দেখতে মাহে রমজান তৃতীয় দশকে এসে পৌঁছেছে। আর অল্পদিনের মেহমান হয়ে আমাদের মাঝে থাকবে পবিত্র মাহে রমজান। যে কয়েকদিন হাতে রয়েছে সেদিন গুলোকে কাজে লাগানো উচিৎ। এই শেষ দশকে ই রয়েছে লাইলাতুলকদর এর মতো আজিমুশ্বান এক পবিত্র রাত। যে রাত হাজারো মাসের রাতের চেয়ে উত্তম। যে রাতে এবাদত করলে নিজের জীবন ধন্য হয়ে যায়।
হুজুর(সা:) রমজানের শেষ দশক কে অতিমাত্রায় এবাদতের মনোনিবেশ করতেন।

রাসুল (সা:) বলেছেন, যে ব্যক্তি রমজান মাস পেয়ে ও নিজেদের গুনাহ মাফ করিয়ে নিষ্পাপ হতে পারলোনা তার মতো হতভাগা এই পৃথিবীতে আর কেউ নেই।
এই শেষ দশক অত্যন্ত মূল্যবান। এই দশকে আল্লাহতায়ালা অসংখ্য জাহান্নামিদের ক্ষমা করে দেন।
তাই আমাদের সকলকে আল্লাহর দরবারে বেশি বেশি তাওবা ইস্তেগফার করতে হবে। নিজেদের অতীত পাপাচারের কথা স্বরণ করে আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করে নিজেদের মাফ করিয়ে নিতে হবে।
রমজান মাস যেহেতু তাওবা কবুলের মাস,তাই অধিক পরিমাণে আল্লাহর কাছে তাওবা করে তার নৈকট্য লাভে সচেষ্ট হতে হবে।


হাদিসে কুদসিতে এসেছে আল্লাহ বলেন, হে আমার বান্দাহ! তোমরা দিনে রাতে গুনাহ করে থাকো,আর আমি গুনাহ মাফ করি, তোমরা আমার কাছে ক্ষমা চাও আমি তোমাদের ক্ষমা করে দিব,( মুসলিম শরিফ)।

রাসুল (সা:)বলেছেন, বান্দাহ যখন তাওবা করে আল্লাহ তার উপর খুশি হন।

তাওবাকারীদের সুসংবাদ দিয়ে আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআন শরিফে উল্লেখ করেছেন, যারা তাওবা করবে এবং নেক আমল করবে আল্লাহ তাদের পাপ গুলোকে নেকী দ্বারা পরিবর্তন করে দেবেন।
( সুরা ফোরকান, আয়াত ৭০)।

তাই আসুন, মাহে রমজানের শেষ দশকে আল্লাহতায়ালার দরবারে কান্নাকাটি করে নিজেদের গুনাহ মাফ করিয়ে নিতে আন্তরিক হয়।

লেখক
মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান
শিক্ষক, জামিয়া কোরআনিয়া সৈয়দা সৈয়দুন্নেছা ও কারিগরি শিক্ষালয়, কাজীপাড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১