শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৩৯৭ কৃতি শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা

স্টাফ রিপোর্টার | সোমবার, ১০ জুন ২০১৯ | পড়া হয়েছে 313 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৩৯৭ কৃতি শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পিএসসি, জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত কৃতি শিক্ষার্থীদেরকে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। গত শনিবার বিকেলে স্থানীয় সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ পৌর মিলনায়তনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের উদ্যোগে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সাবেক শিক্ষক কবি মারুফুল ইসলাম।


ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের উপদেষ্টা অমিত মোদকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গবেষক মুহাম্মদ মুসা, আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ সোপানুল ইসলাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি মফিজুর রহমান লিমন, সাংবাদিক আশিকুল ইসলাম ও শাহাদৎ হোসেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক নিয়াজ মুহাম্মদ খান বিটু।

অনুষ্ঠানে পিএসসির ১৪৫ জন, জেএসসির ৭০ জন এবং এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১৮২জন কৃতি শিক্ষার্থীকে সংবর্ধনা ও একটি করে ক্রেস্ট এবং সনদপত্র দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কবি মারুফুল ইসলাম বলেন, জীবনে স্বপ্ন দেখতে হবে। সেই স্বপ্নকে সত্যি করতে হলে পরিশ্রম করতে হবে। স্বপ্নের অর্থ জীবনকে বুঝতে পারা। তিনি বলেন, জীবনে মা-বাবার গুরুত্ব অনুধাবন করতে হবে।

মা-বাবাকে মূল্যায়ন করতে হবে। তিনি বলেন, বাবা-মা ও শিক্ষকরা তোমাদের ১৬ বছর পর্যন্ত পড়াশুনা উপযোগী করে তুলেছে। কেননা গাড়ি চালানো লাইসেন্স পাওয়া মানে গাড়ি চালানো শেষ নয়। সবেমাত্র শুরু। মনে রাখতে হবে, শিক্ষা জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং সবচেয়ে বিপজ্জনক সময় হলো একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণি। এই দুটি বছর জীবনের শেষ পর্যায় পর্যন্ত ভূমিকা রাখে। তাই দুটি বছরকে অত্যন্ত যত্মসহকারে কাজে লাগাতে হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১