শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষে আহত ব্যক্তির মৃত্যু, ফের সংঘর্ষে আহত ৩০, বাড়ি-ঘর ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ

প্রতিনিধি | শনিবার, ৩০ এপ্রিল ২০১৬ | পড়া হয়েছে 614 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষে আহত ব্যক্তির মৃত্যু, ফের সংঘর্ষে আহত ৩০, বাড়ি-ঘর ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ

গত শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত স্বচ্ছল মিয়া ওরফে সাগর মিয়া (২৪) মৃত্যু হয়েছে। এ খবরে ফের উভয়পক্ষের মহিলাসহ ৩০জন আহত হয়েছে। বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে দাঙ্গাবাজরা। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ দিন ধরে উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের মাশাউরা গ্রামের সাবেক মেম্বার ফারুক মিয়ার সঙ্গে পার্শ্ববর্তী মনিপুর গ্রামের চেয়ারম্যান তাজু মিয়ার বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে ২৬ এপ্রিল সকালে প্রতিপক্ষের শতাধিক লোকজন দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে ফারুক মেম্বার গোষ্ঠীর লোকজনের উপর হামলা চালায়। এতে মহিলাসহ প্রায় ২৫জন আহত হয়। গুরুতর আহত স্বচ্ছল মিয়া (২৪) ও শারমিন আক্তার (১৬) কে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্বচ্ছল মিয়া গতকাল সকাল ৬টায় মারা যায়। সে মাশাউড়া গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে। খবর পেয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন গতকাল সকাল ৭টায় দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে ফের হামলা চালালে উভয়পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। ঘন্টা ব্যাপী সংঘর্ষে উভয়পক্ষের মহিলাসহ ৩০জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে আশংকজনক অবস্থায় সিদ্দিক মিয়া (৫৮) কে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। অন্যদের জেলা সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। সংঘর্ষের সময় প্রতিপক্ষের দাঙ্গাবাজরা ফারুক মেম্বারের ৪টি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। নিহতের বড় ভাই সাবেক মেম্বার ফারুক মিয়া জানান, ভাইয়ের মৃত্যুর খবর বিজয়নগর থানা পুলিশকে জানাই। তারা যেন আমাদের প্রতিপক্ষের হামলা থেকে রক্ষা করে। গ্রাম থেকে থানার দূরত্ব মাত্র ১০ কিলোমিটার আর চম্পকনগর ফাঁড়ির দূরত্ব ৪ কিলোমিটার। কিন্তু পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে সকাল ১০টায়। এর আগেই আমাদের বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট অগ্নিসংযোগ করে প্রতিপক্ষের দাঙ্গাবাজরা।
বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল পাশা জানান, ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১