[count_down]

শিরোনাম

ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে যুবকের কাছ থেকে টাকা নেয়ার সময়

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতারক গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার | সোমবার, ০৬ মে ২০১৯ | পড়া হয়েছে 1328 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতারক গ্রেপ্তার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে চাকুরী প্রত্যাশী এক যুবকের কাছ থেকে টাকা নেয়ার সময় প্রতারক আবু বক্কর শাহিন-(২৭) নামে এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত রবিবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত আবু বক্কর শাহিন কসবা উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের মরহুম আবুল কালামের ছেলে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিজয়নগর উপজেলার ইসলামপুর কাজী শফিকুল ইসলাম কলেজে পড়ার সুবাধে বিজয়নগর উপজেলার ফরহাদুল আমিন মামুনের সাথে কসবার আবু বক্কর শাহিনের বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক গড়ে উঠে।


চাকুরী প্রত্যাশী ফরহাদুল আমিন মামুন জানান,তাকে মুন্সিগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে অফিস সহকারী পদে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে ৩ লাখ টাকার চুক্তি করে আবু বক্কর শাহিন। পরে সে নিয়োগ পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রদান করা সহ কয়েক ধাপে ১৮ হাজার টাকা গ্রহন করে তার কাছ থেকে।

গত রবিবার আরো একলাখ টাকা নিতে শাহিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া আসে। শহরের সুপার মার্কেট এলাকা থেকে এই টাকা নেয়ার কথা ছিলো শাহিনের। পরে মামুন তার এক বড় ভাইয়ের সামনে টাকা দেবে বলে শাহিনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে নিয়ে আসে। মামুনকে দেয়া নিয়োগপত্রটি দেখে প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পীর সন্দেহ হলে তিনি তাৎক্ষনিক বিষয়টি আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এবং মন্ত্রীর সাবেক একান্ত সচিব কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কায়সার ভূইয়া জীবনকে অবহিত করেন। তারা দু’জনেই ওই প্রতারককে পুলিশে সোপর্দ করতে বলেন। পরে প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক বিষয়টি ব্রাহ্মণবাড়িয়া থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ এসে আবু বক্কর শাহিনকে আটক করে নিয়ে যায়।

প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পী জানান, আবু বক্কর শাহিন তার রুমে টাকা নিতে এসে ২ মে মুন্সিগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট স্বাক্ষরিত একটি নিয়োগপত্র দেয় মামুনের হাতে। নিয়োগপত্রে ৯ মে যোগদানের কথা বলা হয়েছে। এরআগে ইস্যুর তারিখ ছাড়া ২৬ এপ্রিল লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠানের একটি প্রবেশপত্র দেয়া হয় মামুনকে। মামুন পরীক্ষা দিতে ঢাকা গেলে তাকে পরীক্ষা দিতে হবেনা এবং তার চাকুরী হয়ে গেছে বলে জানায় শাহিন। বিষয়টি তার সন্দেহ হলে তিনি তাৎক্ষনিক বিষয়টি আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এবং মন্ত্রীর সাবেক একান্ত সচিব কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কায়সার ভূইয়া জীবনকে অবহিত করলে তারা দু’জনেই ওই প্রতারককে পুলিশে সোপর্দ করতে বলেন।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল হক জিয়া জানান, ভুক্তভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাকে আটক করা হয়। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০