শিরোনাম

হেফাজতি তান্ডব

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ লাইন্সে হামলার পরিকল্পনাকারীসহ ১১জন গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার | বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১ | পড়া হয়েছে 105 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ লাইন্সে হামলার পরিকল্পনাকারীসহ ১১জন গ্রেপ্তার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডবের সময় জেলা পুলিশ লাইন্সে হামলার ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারি জেলা যুবদল নেতা মোঃ হাসমত খন্দকার-(৪৯)সহ আরো ১১জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার বিকেল থেকে মঙ্গলবার রাতব্যাপী জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। এনিয়ে তান্ডবের ঘটনায় ৩২৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে অন্যতম হলেন জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ হাসমত খন্দকার। তিনি সদর উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের ঘাটুরা গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে। মঙ্গলবার বিকেলে পৌর এলাকার পশ্চিম মেড্ডা শরীফপুর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ জানায়, হেফাজতের তান্ডব চলাকালে গত ২৮ মার্চ পুলিশ লাইনসে হামলা ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারি হিসেবে হাসমত খন্দকারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।


বুধবার জেলা পুলিশের বিশেষ শাখা থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গ্রেপ্তারকৃত হাসমত খন্দকার পুলিশ লাইনসে হামলার মূল পরিকল্পনাকারি। এ ঘটনায় গত ১৪ এপ্রিল দায়ের হওয়া মামলার তিনি প্রধান আসামী।

প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘন্টায় হাসমত খন্দকার সহ ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হেফাজতের তান্ডবের ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন থানায় এ পর্যন্ত ৫৬টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় ৪৯টি, আশুগঞ্জ থানায় ৪টি, সরাইল থানায় ২টি এবং আখাউড়া রেলওয়ে থানায় ১টি মামলা দায়ের করা হয়। ৫৬টি মামলায় ৪১৪জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৩০/৩৫ হাজার লোককে আসামী করা হয়। পুলিশ মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত এ সকল মামলায় মোট ৩২৮ জনকে গ্রেপ্তার করে।

এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ডিআইওয়ান) ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, পুলিশ ভিডিও ফুটেজ ও ছবি দেখে আসামীদেরকে গ্রেপ্তার করছে। এছাড়াও যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আছে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। তিনি বলেন তান্ডবের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩২৮জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তির অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশে আগমনের প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ চালায়। হামলাকারীরা সরকারি, বেসরকারি প্রায় অর্ধশতাধিক স্থাপনায় হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগ করে পুরো ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে মৃত্যুপুরিতে পরিনত করে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১