শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিনব্যাপী জেলা ইজতেমা শুরু

স্টাফ রিপোর্টার : | বৃহস্পতিবার, ০৪ জানুয়ারি ২০১৮ | পড়া হয়েছে 102 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিনব্যাপী জেলা ইজতেমা শুরু

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় আজ বৃহস্পতিবার (০৪.০১.২০১৮) থেকে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার একাংশ জেলা ইজতেমা। সদর উপজেলার নাটাই দক্ষিণ ইউনিয়নের কালিসীমা-শালগাঁও স্কুল ও ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন তিতাস নদীর তীরে আজ ভোরে আম বয়ানের মধ্যে দিয়ে বিশ্ব ইজতেমা শুরু হয়।
তাবলিগ জামাতের বৃহৎ এই আয়োজন ইজতেমাকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যেই জেলাসহ আশপাশ এলাকার বিভিন্ন স্থান থেকে মুসল্লীরা ইজতেমায় আসতে শুরু করেছে।
এদিকে জেলা ইজতেমা সুন্দর ও শান্তিপূর্নভাবে পালনের জন্য ইজতেমা চলাকালীন সময়ে তিনদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের সব ধরনের কর্মসূচী স্থগিত ঘোষণা করেছে জেলা আওয়ামীলীগ। এদিকে ইজতেমাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান ইজতেমার মাঠ পরিদর্শন করেছেন।
তিনদিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার জন্য কালিসীমা-শালগাঁও স্কুল ও ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন তিতাস নদীর তীরে প্রায় ২৫ একর জায়গা জুড়ে বিশাল প্যান্ডেল নির্মান করা হয়েছে। মুসল্লীদের অজু করার জন্য পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। নির্মান করা অস্থায়ী ৮শত বাথরুম। বিদেশী অতিথিদের থাকার জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ৮জন বিদেশী মেহমান বয়ান করার জন্য ইজতেমায় এসেছেন বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ইকবাল হোসাইন।
তিনি বলেন, শান্তিপূর্ন ও নির্বিঘ্নে জেলা ইজতেমা পালনের জন্য জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্যান্ডেলের মধ্যে বসানো হয়েছে ২৫টি সিসি ক্যামেরা। ইজতেমার ময়দানকে পাঁচ ভাগে ভাগ করে জল ও স্থলপথে নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইজতেমার মাঠে ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তার জন্য ৫৮৫ জন পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও রয়েছে র‌্যাব, বিজিবি, আমর্ড পুলিশ, নৌ-পুলিশসহ বিভিন্ন আইন-শৃংখলাবাহিনীর আলাদা টীম। থাকবেন কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। ইজতেমার মাঠে রয়েছে অবজারভেশন পোস্ট। রাতে এ পোস্ট গুলোতে নাইটভিশন বাইনোকুলার ব্যবহার করা হবে। মুসল্লীদের জরুরি চিকিৎসাসেবার জন্য একটি মেডিকেল ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। একটি অ্যাম্বুলেন্সকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ইজতেমা মাঠের আশপাশে ছিনতাই, পকেটমার, মলমপার্টি এবং বিভিন্ন দুর্ঘটনা এড়াতে পোশাকে ও সাদা পোশাকে বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। ইজতেমায় কোন কিছু হারানো বা পাওয়া গেলে জেলা পুলিশের “হারানো প্রাপ্তি সহায়তা সেল” এর মাধ্যমে সেবা পেতে পাওয়া যাবে।
ইজতেমায় যেতে পৌর এলাকার পৈরতলা বাসস্ট্যান্ড থেকে কালীসীমা প্রবেশ পথ পর্যন্ত গাড়ি পার্কিং নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এজন্য পর্যাপ্ত ট্রাফিক মোতায়েন করা হয়েছে।
ইজতেমায় আসা মুসল্লী মুফতি উবায়দুল্লা কাসেমী, আমির হোসেন, মাওলানা নুরুল্লাহ জানান, দেশ-জাতি ও মুসলিম উম্মার ঐক্য ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধন সু-দৃঢ় জন্য বিশ্ব ইজতেমায় বিশেষ মোনাজাত করা হবে।
স্থানীয় বাসিন্দা ও বিশ্ব ইজতেমার আয়োজকদের একজন সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোঃ আলী আজম জানান, ইজতেমায় আসা দেশী-বিদেশী মেহমানদের থাকার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। প্রায় ২৫ একর জায়গা জুড়ে বিশাল প্যান্ডেল নির্মান করা হয়েছে। মুসল্লীদের অজু করার জন্য পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশপাশি মুসল্লীদের ফ্রি-চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। মুসল্লী জন্যে তিতাস নদীর তীরে প্রায় ৮শত শোচাগার (বাথরুম) নির্মান করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে নাটাই দক্ষিণ ইউনয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নাজমুল হক বলেন, তিনদিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে সকল প্রস্তুতি স¤পন্ন হয়েছে। আমরা ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে সবধরনের সহযোগীতা করছি।
এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার বলেন, আমরা আমাদের দলীয় সকল কর্মসূচী তিনদিনের জন্য স্থগিত করে দলীয় নেতা-কর্মীদেরকে বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মুসল্লীদের সেবা করার নির্দেশ দিয়েছে।
এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, বিশ্ব ইজতেমা যাতে সুন্দর ও নির্বিঘ্নে সফল হয় সেজন্য সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইজতেমার প্যান্ডেলের মধ্যে বসানো হয়েছে ২৫টি সিসি ক্যামেরা। ইজতেমা ময়দানকে পাঁচটি ভাগে ভাগ করে জল ও স্থলপথে নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। নিরাপত্তার জন্য ৫৮৫ জন পুলিশ সদস্য নিয়োজিত করা হয়েছে। এছাড়াও রয়েছে র‌্যাব, বিজিবি, আমর্ড পুলিশ, নৌ-পুলিশসহ ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করবে। ময়দানের পাশে থাকবে অবজারভেশন পোস্ট। রাতে এ পোস্ট গুলোতে নাইটভিশন বাইনোকুলার ব্যবহার করা হবে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১