শিরোনাম

আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিনদিনব্যাপী জেলা ইজতেমা সমাপ্ত

শামীম উন বাছির : | শনিবার, ০৬ জানুয়ারি ২০১৮ | পড়া হয়েছে 104 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিনদিনব্যাপী জেলা ইজতেমা সমাপ্ত

আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে আজ শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় শেষ হয়েছেন তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার একাংশ জেলা ইজতেমা। আজ শনিবার (০৬.০১.২০১৮) দুপুর ১২টার দিকে আখেরি মোনাজাত শুরু হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেছেন তাবলিগ জামাতের মুরুব্বী, ঢাকার কাকরাইল মসজিদের সুরা সদস্য মাওলানা রবিউল হক। প্রায় ২৭ মিনিটের মোনাজাতে দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মার ভ্রাতৃত্ব, সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে মহান আল্লাহতায়ালার কাছে প্রার্থনা করা হয়। মোনাজাতে দেশী বিদেশী মেহমান সহ প্রায় তিন লক্ষাধিক মুসল্লী অংশ নেন। এর আগে আখেরী মোনাজাতকে কেন্দ্র করে ভোর রাত থেকেই জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও আশপাশ এলাকা থেকে মুসল্লীরা সদর উপজেলার নাটাই দক্ষিণ ইউনিয়নের কালিসীমা-শালগাঁও স্কুল ও ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন তিতাস নদীর তীরে অনুষ্ঠিত ইজতেমার মাঠে প্রবেশ করতে থাকে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে মুসল্লীদের স্রোত। মোনাজাতে অংশ নিতে মানুষ মূল মাঠে জায়গা না পেয়ে তিতাস নদীর দুই পাড়ে, নৌকায়, বিভিন্ন বাসা-বাড়ির ছাদে অবস্থান নেয়। মোনাজাতের আগে ইজতেমাস্থলের চারপাশের এলাকাজুড়ে কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না।

মোনাজাতে অংশ গ্রহনকারী মোঃ আবু কাউছার ও মারুফ তিশান জানান, মোনাজাতে তারা নিজেদের পরিবারের পাশাপাশি মহান আল্লাহ তা’লার কাছে দেশও জাতির কল্যাণে দোয়া করেছেন। ইজতেমার শান্তিপূর্ণ পরিবেশ দেখে তারা স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।
ইজতেমা ময়দানের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ রেজাউল কবীর জানান, আখেরি মোনাজাতকে কেন্দ্র করে স্থলপথ-নৌ-পথে মুসল্লীদের উপচেপড়া ভীর ছিল। আখেরি মোনাজাতে আনুমানিক তিন লক্ষাধিক মুসল্লী অংশ গ্রহন করেছেন।


অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ইকবাল হোসাইন জানান, শান্তিপূর্ন ও নির্বিঘেœ জেলা ইজতেমা পালনের জন্য ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। প্যান্ডেলের মধ্যে বসানো হয় ২৫টি সিসি ক্যামেরা। ইজতেমার ময়দানকে পাঁচ ভাগে ভাগ করে জল ও স্থলপথে নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। ইজতেমার মাঠে ৫৮৫ জন পুলিশ সদস্য মোতায়েনসহ র‌্যাব, বিজিবি, আমর্ড পুলিশ, নৌ-পুলিশসহ বিভিন্ন আইন-শৃংখলাবাহিনীর আলাদা টীম কাজ করে। তিনি বলেন, মুসল্লীরা যাতে নিরাপদে ইজতেমায় যেতে পরে সেজন্য পৌর এলাকার পৈরতলা বাসস্ট্যান্ড থেকে কালীসীমা প্রবেশ পথ পর্যন্ত গাড়ি পার্কিং নিষিদ্ধ করা হয়। মোতায়ন করা হয় পর্যাপ্ত ট্রাফিক পুলিশ। তিনি বলেন, আল্লাহর রহমতে সকলের সহযোগীতায় শান্তিপূর্নভাবে তিনদিন ব্যাপী বিশ্ব ইজতেমা স¤পন্ন হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সকালে আম বয়ানের মধ্য দিয়ে তিন দিনব্যাপী জেলা ইজতেমা শুরু হয়।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১