শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ক্লিনিক ভাঙচুর, আটক ৭

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : | শনিবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৬ | পড়া হয়েছে 505 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ক্লিনিক ভাঙচুর, আটক ৭

মালিকানা নিয়ে বিরোধের জেরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের পুরান কাচারি এলাকার  গ্র্যান্ড হাসপাতাল ভাঙচুর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৫ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভাঙচুরের এ ঘটনা ঘটে।


আটককৃতরা হলেন- জিয়াউল হক জিয়া (৪৫), হারিজ মিয়া (৫২), এনামুল হক (৫২), আফরিন খন্দকার (৩৫), রাসেল ভূঁইয়া (২২), রবিন ভূঁইয়া (২০) ও মুত্তাকিন (১৮)।

এদের মধ্যে জিয়াউল হক ওই হাসপাতালের অংশীদার। বাকিরা সবাই বহিরাগত।

সদর থানা পুলিশ ও হাসপাতালে কর্মরতরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে গ্র্যান্ড হাসপাতালের মালিকানা নিয়ে অংশীদার জিয়াউল হকের সঙ্গে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ইব্রাহিম খান সাদাত’র বিরোধ চলছিল। এ বিরোধের জেরে জিয়াউল হক কয়েকজন বহিরাগতকে সঙ্গে নিয়ে হাসপাতাল দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে।

এসময় হামলাকারীরা ভর্তি থাকা রোগীদের হাসপাতাল থেকে বের করে দিয়ে ভাঙচুর শুরু করে।

খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতাল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। এসময় পুলিশ হামলাকারীদের আত্মসমর্পণ করতে বলেন। কিন্তু হামলাকারীরা আত্মসমর্পণ না করে হাসপাতালের একটি কক্ষে অবস্থান নেয়। পরে পুলিশ ওই কক্ষ ভেঙে ভেতরে ঢুকে তাদের আটক করে।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ইব্রাহিম খান সাদাত জানান, জিয়াউল হক হাসপাতালের অংশীদার নন। তিনি ভোরে সন্ত্রাসীদের নিয়ে হাসপাতাল ভাঙচুর করে এবং রোগীদের মারধর করে হাসপাতাল থেকে বের করে দেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাইনুর রহমান জানান, হাসপাতালে হামলাকারীদের মধ্যে সাতজনকে আটক করা হয়েছে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০