শিরোনাম

ভূয়া কাগজপত্র দেখিয়ে পাসপোর্ট করার চেষ্টাকালে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক রোহিঙ্গা তরুনীসহ তিনজন আটক

স্টাফ রিপোর্টার | বৃহস্পতিবার, ০১ আগস্ট ২০১৯ | পড়া হয়েছে 833 বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক রোহিঙ্গা তরুনীসহ তিনজন আটক

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভূয়া কাগজপত্র দিয়ে পাসপোর্ট করার চেষ্টাকালে মরিচান-(১৭) নামে এক রোহিঙ্গা তরুনী ও তার সাজানো পিতা-মাতাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে পাসপোর্ট অফিস কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার (০১ আগস্ট ২০১৯) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার মেড্ডা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটক রোহিঙ্গা তরুনীর বাড়ি মায়ানমারের আরাকান রাজ্যের নয়াপাড়ায়। সে কক্সবাজার জেলার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবস্থান করতো। আটককৃত সাজানো পিতা-মাতারা হলেন কসবা উপজেলার বিনাউটি ইউনিয়নের নেমতাবাদ গ্রামের মোখলেছ মুন্সি-(৫২) এবং আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্দ ইউনিয়নের গিরিশনগর গ্রামের লিপা বেগম-(৩৮)। তারা দু’জন সম্পর্কে বেয়াই-বেয়াইন।


ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক মোঃ জামাল হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে রোহিঙ্গা ওই তরুনীকে নিয়ে পাসপোর্ট করতে আসেন লিপা বেগম এবং মোখলেছ মুন্সি। তারা ওই রোহিঙ্গা তরুনীকে তাদের মেয়ে এবং নাম তানজিনা আক্তার বলে পরিচয় দেন।
পরে তাদের কথাবার্তায় অসংলগ্নতা এবং কাগজপত্র যাচাই করে অসঙ্গতি পাওয়া যায়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে মোখলেছ মুন্সি জানান, তার মেয়ের নাম তানজিনা আক্তার। তার মেয়ের জন্ম নিবন্ধন সার্টিফিকেট দিয়েই রোহিঙ্গা তরুনীর পাসপোর্ট করতে আসেন। তিনি জানান, লিপা বেগম সম্পর্কে তার বেয়াইন। লিপা বেগমের মেয়ে তার পুত্রবধূ। লিপা বেগমের মাধ্যমেই ওই রোহিঙ্গা তরুনীর সাথে তার পরিচয় হয়েছে।

আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক মোঃ জামাল হোসেন আরো বলেন, রোহিঙ্গা ওই তরুনীর বাড়ি মায়ানমারের আরাকান রাজ্যের নয়াপাড়ায়। সে কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাস করতো। দুই দালালের মাধ্যমে সে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পাসপোর্ট অফিসে আসেন পাসপোর্ট করার জন্যে। পরে ওই তরুনীসহ তিনজনকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
এ ব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ সেলিম উদ্দিন জানান, তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০