শিরোনাম

বাবুই পাখির কুঁড়েঘর দেখতে অনেকটা উল্টানো কলসের মতো

বিশেষ প্রতিনিধি : | বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮ | পড়া হয়েছে 619 বার

বাবুই পাখির কুঁড়েঘর দেখতে অনেকটা উল্টানো কলসের মতো

বাবুই পাখির কুঁড়েঘর। “বাবুই পাখিরে ডাকি, বলিছে চড়াই,/ কুঁড়ে ঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই,/ আমি থাকি মহাসুখে অট্টালিকা পরে/ তুমি কত কষ্ট পাও রোদ, বৃষ্টি, ঝড়ে।” কবি রজনীকান্ত সেনের ছড়াটির নায়ক নিপুণ বাসা তৈরির কারিগর বাবুই পাখি। একই গাছে অনেকগুলো বাসা বাঁধে এই পাখি। ঘাস, খড়কুটো বা নারকেলগাছের পাতা ছিঁড়ে ছিঁড়ে তারা বোনে তাদের বাসা। বাবুই দক্ষিণ এশিয়ার একটি এন্ডেমিক পাখি। এন্ডেমিক বলতে বোঝায় কোনো প্রজাতির নির্দিষ্ট কোনো ভৌগোলিক স্থানে সীমাবদ্ধ হয়ে যাওয়া। এ বাবুই বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও পাকিস্তান ছাড়া পৃথিবীর আর কোথাও নেই। আমাদের তিন প্রজাতির বাবুই হলো দেশি বাবুই (Ploceus philippinus), দাগি বাবুই (Ploceus manyar) ও বাংলা বাবুই। এদের মধ্যে দেশি বাবুই দেশের সব গ্রামের তাল, নারকেল, খেজুর, রেইনট্রিগাছে দল বেঁধে বাসা বোনে। কিন্তু বাংলা ও দাগি বাবুই বিরল। লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার সিন্দুর্নায় এক সুপারিগাছে দেখা মিলল বাবুই পাখির নতুন-পুরোনো বাসা।

বাবুই পাখির বাস দেখতে অনেকটা উল্টানো কলসের মতো।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১