শিরোনাম

৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে জেলা যুবলীগের আলোচনা সভা

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অন্যতম সহযোগী সংগঠন যুবলীগ দেশের গণতন্ত্রতান্ত্রিক সকল আন্দোলনের অবিচ্ছেদ্ধ অংশ। ———–উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি

স্টাফ রিপোর্টার : | শনিবার, ১২ নভেম্বর ২০১৬ | পড়া হয়েছে 134 বার

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অন্যতম সহযোগী সংগঠন যুবলীগ দেশের গণতন্ত্রতান্ত্রিক সকল আন্দোলনের অবিচ্ছেদ্ধ অংশ।                        ———–উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বলেছেন, যুবলীগ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অন্যতম সহযোগী সংগঠন। যুবলীগ দেশের গণতন্ত্রতান্ত্রিক আন্দোলনের অবিচ্ছেদ্ধ অংশ। দেশের প্রয়োজনে যুবলীগের নেতাকর্মীরা অতন্দ্র প্রহরীর ন্যায় ঝাঁপিয়ে পরে। সাংগঠনিক ভাবে যুবলীগের কোন বদনাম নেই। তিনি বলেন গৌরব উজ্বল ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর চেতনায় উজ্জিবিত হয়ে অতিতের মত ভবিষ্যতেও দেশের প্রয়োজনে বলিষ্ট ভূমিকা রাখার জন্য যুবলীগের প্রতিটি নেতা কর্মীদেরকে প্রস্তুুত থাকতে হবে। মোকতাদির চৌধুরী এমপি গত শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের আয়োজিত স্থানীয় লোকনাথ দিঘীরপাড়স্থ আব্দুল কুদ্দুস মাখন পৌর মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা, কেককাটা ও র‌্যালী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। বক্তব্যে তিনি আরো বলেন নাছিরনগরে হিন্দু মন্দির ও বাড়ি ঘরে যারা আগুন দিয়েছে তারা দেশের সাম্প্রদায়িক শক্তি। এ ঘটনায় আওয়ামীলীগের কোন কোন নেতাকর্মী জরিত থাকলেও সাংগঠনিক ভাবে স্থানীয় অওয়ামীলীগ বা জেলা আওয়ামীলীগ জড়িত নয়। কেনা আওয়ামীলীগ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় রাজনীতিতে বিশ্বাস করে, ধর্মনিরপেক্ষ রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। হিন্দুদের বাড়ি ঘরে আগুন দেওয়ার কথা আমরা বা নাছিরনগর আওয়ামীলীগ কল্পনাও করতে পারি না। তিনি বলেন নাছিরনগর আওয়ামীলীগের সাথে আমার বা জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক বিষয়ে মতপ্রার্থক্য থাকতে পারে কিন্তু কোন ব্যক্তিগত দ্বন্দ নেই। এ ঘটনায় যারা ঘোলাপানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করে তারা আওয়ামীলীগের ভালো চায় না। নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেত্রীত্বের প্রতি আমার পরিপূর্ণ আস্থা রয়েছে। একজন একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে তাঁর যে কোন নির্দেশ বাস্তবায়ন করা আমার দায়িত্ব। আপনারা আমাকে ভালোবাসেন এজন্য আপনাদের ধন্যবাদ। তিনি বলেন কোন গুজবে কান দিয়ে বিভ্রান্ত হবেন না, কিছু ঘটলেই তা প্রকাশ্যেই দেখতে পাবেন। সভায় জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এড. শাহনুর ইসলাম এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকার, জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি, সাবেক মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন, সহ-সভাপতি পৌর মেয়র মিসেস নায়ার কবির, সহ সভাপতি তাজ মোহাম্মদ ইয়াছিন, সহ-সভাপতি মজিবুর রহমান বাবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী মন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহবুবুল আলম খোকন, সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মোঃ আলী আজম ও সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন রানা, শহর যুবলীগের আহবায়ক আমজাদ হোসেন রনি প্রমুখ। অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ ৪৪তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেট কাটেন। পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের নেতৃত্বে এক বর্নাঢ্য র‌্যালী লোকনাথ দিঘিরপাড় থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালীর শুরুতে নেতৃবৃন্দ জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০