শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ প্রেসক্লাব পরিদর্শনকালে ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী

প্রেসক্লাবে আক্রমন মসজিদে আক্রমনের সমান, আমরা মর্মাহত

স্টাফ রিপোর্টার | শনিবার, ০৩ এপ্রিল ২০২১ | পড়া হয়েছে 80 বার

প্রেসক্লাবে আক্রমন মসজিদে আক্রমনের সমান, আমরা মর্মাহত

গনস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্ট্রি ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, প্রেসক্লাবে আক্রমন মসজিদে আক্রমনের সমান। সাংবাদিকদের উপর হামলা ঘৃন্য কাজ। এতে আমরা মর্মাহত।

তিনি শনিবার ৩রা এপ্রিল, ২০২১ দুপুর দেড়টায় গনসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জুনায়েদ সাকীসহ একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবসহ অন্যান্য স্থাপনা পরিদর্শনকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সাথে একথা বলেন।


এ সময় ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরো বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যে ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে, বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার মাধ্যমে জেনেছি রাম দা নিয়ে হামলা চালিয়েছে, আবার আপনাদের কাছ থেকে তথ্য পাচ্ছি হেফাজতদের বিক্ষোভকারীদের মধ্যে প্যান্ট শার্টপড়া লোকজনও ছিল।

তিনি বলেন, প্রেসক্লাবে হামলা একটি অপরিপক্ক বিষয়। আজ (শনিবার) আমার গাড়ি শহরে ঢুকতেই পুলিশ আমার গাড়ি আটকায়, প্রশ্ন করে কোথায় যাব? কেন যাব? কতটা সচেতন পুলিশ। অথচ এই পুলিশ কি করে এতো বড় ঘটনার খবর জানতে পারলনা তা আমার বোধগম্য নয়। আসলে এ বিষয়গুলো খতিয়ে না দেখে এখন কিছু বলা সম্ভব নয়। তবে প্রেসক্লাব ভাংচুর, প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ অন্যান্য সাংবাদিকদের উপর হামলা একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা এবং নিন্দনীয়। আমরা এই ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

তিনি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসনের এমপি মোকতাদির চৌধুরী অভিযোগ করেছেন, নারকীয় তান্ডবের সময় পুলিশ নিষ্ক্রিয় ছিলো, এখানে এসে বিভিন্ন মানুষের সাথে কথা বলে জেনেছি পুলিশের ভূমিকা, জেনেছি হামলার সময় হুজুরদের সাথে শার্ট-প্যান্টপড়া লোকজনও ছিলো। তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্থ স্থাপনা ও হুজুরদের সাথে কথা বলেছি। তিনি বলেন, আমরা সংঘর্ষের সময় ১৫জন যে নিহত হয়েছে সে ঘটনার যেমন নিন্দা জানাই, তেমনি সরকারি, বেসরকারি বিভিন্ন স্থাপনা ভাংচুর ও অগ্নিকান্ডের যে ঘটনা ঘটেছে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

এ সময় গনসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জুনায়েদ সাকী বলেন, আমরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ক্ষতিগ্রস্থ সকল স্থাপনা পরিদর্শন করে ঢাকায় গিয়ে এ বিষয়ে প্রেস বিফ্রিং করবো। তিনি বলেন, প্রেসক্লাব খুবই গুরুত্বপূর্ন জায়গা, সাংবাদিকগন জনগণের জন্যই কাজ করে। বিভিন্ন প্রতিকূলতার মধ্যেও সাংবাদিকগণ সমাজের জন্য কাজ করেন। তাদেরকেই যদি হামলা করা হয়, সাধারণ জনগণ তথ্য পাওয়া থেকে বাঁধাগ্রস্থ হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, মুক্তিযোদ্ধা নঈম জাহাঙ্গীর, নারীপক্ষের শিরিন হক, রাষ্ট্র বিজ্ঞানী, অধ্যাপিকা দিলারা চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা ইসতিয়াক আজিজ উলফত, পারি বিশেষজ্ঞ ম. ইনামুল, রাষ্ট্র চিন্তার দিদারুল ভূইয়া, ব্যারিষ্টার সাদিয়া আরফান, ভাসানী অনুসারী পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য নাঈম জাহাঙ্গীর, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু প্রমুখ।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০