শিরোনাম

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে ভাঙা রাস্তা ও হাঁটু পানি, জনগণের দুর্ভোগ

পর্যায়ক্রমে সব রাস্তার সংস্কার কাজ করা হবে : মেয়র নায়ার কবির

ষ্টাফ রিপোর্টার : | সোমবার, ২১ মে ২০১৮ | পড়া হয়েছে 93 বার

পর্যায়ক্রমে সব রাস্তার সংস্কার কাজ করা হবে : মেয়র নায়ার কবির

বৈশাখ, জৈষ্ঠ্য, আষাঢ়, শ্রাবণ এগুলো ঝড়-বৃষ্টির ঋতু। চারদিকে পুকুর-নদীতে বৃষ্টির পানিতে থাকবে থৈথৈ অবস্থা। কিন্তু পুকুর-নদীর ন্যায় ভরে উঠছে নালা-নর্দমা। যার কারণে বৃষ্টির পানি রাস্তায় নেমে এসে গেছে। গত শুক্রবার ও শনিবার ভোর সকাল থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টানা ৪ ঘন্টা বৃষ্টি ঝরেছে। যার কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের প্রত্যেক এলাকায় রাস্তায় জমে উঠে পানি। সাধারণ জনগণ ও এলাকাবাসীর দুর্ভোগের শিকার হতে হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের প্রত্যেক নালা-নর্দমা ও রাস্তার অবস্থা খুবই শোচনীয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের অধিকাংশ এলাকাগুলোর রাস্তা ভেঙে খানাখন্দে ভরে গেছে। কাজীপাড়া, মৌড়াইল, দাতিয়ারা, উত্তর মৌড়াইল সহ বিভিন্ন এলাকাগুলো বর্তমানে দুর্ভোগের শিকার। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা সংলগ্ন রাস্তা সংস্কার কাজ চলছে। তা না কি বঙ্গবন্ধু স্কয়ারের সৌন্দর্য বর্ধনের আওতায় পড়ে। কিন্তু বিগত কয়েক বছর যাবৎ এসব এলাকার রাস্তাগুলোর কোন সংস্কার নেই বল্লেই চলে। কয়েকদিন আগে কয়েকটি এলাকার মধ্যে রাস্তার সংস্কার কাজের ছোঁয়া দেখা যাচ্ছিল, কিন্তু তার আসলে পরিপূর্ণতা ছিল না। ভাঙা রাস্তাগুলোর খানা-খন্দের মধ্যে সাধারণ ইট আর বালু দিয়ে চলছিল সংস্কার। পাথর পিচের কাজ যদি ইট দিয়ে হতো তাহলে কেউ আর পাথর-পিচের রাস্তা তৈরি করতো না। ইট-বালু দিয়েই রাস্তা সংস্কার কাজ চালিয়ে নিতো। কিন্তু যে রাস্তাগুলোর মধ্যে ইট-বালু পড়েছে তা এখন আর চোখে পড়ছে না। বৃষ্টির পানিতে সব বালু ধুয়ে গেছে। আর ইটগুলো জায়গা থেকে উঠে এসে রাস্তার যত্রতত্র পড়ে রয়েছে। এখন রাস্তাগুলো বেহাল অবস্থায় পরিণত। আসলে পৌর কর্তৃপক্ষের অবহেলা, ইঞ্জিনিয়ার ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের অনিয়মের কারণে আজ রাস্তাগুলো এমন দূরাবস্থা বলে ধারণা করছেন সচেতন মহল। পরিষ্কার বুঝা যাচ্ছে, বর্তমান রাস্তাগুলো সংস্কার কাজের জন্য তেমন উদ্যোগ নেই কর্তৃপক্ষের। তাই সংশ্লিষ্ট ঠিকাদাররা রাস্তাগুলোর মধ্যে সামান্য ইট-বালু দিয়ে দায়সারা কাজ করছেন।

উত্তর মৌড়াইলের ব্যবসায়ী আফজল মিয়া (৪৫) বলেন, আমার বয়স অনুযায়ী ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের রাস্তাঘাটের এমন অবস্থা দেখি নাই। ভোর থেকে বৃষ্টি পড়ার কারণে বৃষ্টির পানি রাস্তায় জমে অবস্থা খুবই কাহিল আমাদের। রোজা-রমজান মাস এই অবস্থা হলে কি ভাবে ব্যবসা করমু। আর আজ যে অবস্থা দেখলাম মনে হয়েছিল নদী রাস্তার উপর উঠে গেছে। অপরদিকে, কাজীপাড়ার এক মুরুব্বীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, কাজীপাড়ার রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ। পুরো শহরের মধ্যে মনে হয় আমাদের কাজীপাড়ার রাস্তাটাই খুব খারাপ। ওভার ব্রীজের কাজের জন্য বড় বড় গাড়ি এদিক দিয়ে এসে রাস্তা ঘাট ভেঙে দিয়েছে। কিন্তু পৌরসভার মেয়র ও কাজীপাড়ার কাউন্সিলর এর কোন মাথা ঘামতি নেই। কয়েকদিন ইট বালু দিয়ে রাস্তার গর্ত ভরাট করেছিল, কিন্তু গর্তগুলো আবার সেই পূর্ণ রূপ ফিরে পেয়েছে। ইট-বালু দিয়ে কি রাস্তা ঠিক করা যাইব ? এমনটাই মন্তব্য শহরের জনগণের।


প্রতিদিন এ সমস্ত রাস্তা দিয়ে চলাচল করে হাজারো মানুষ আর তার সাথে যানবাহনতো রয়েছেই। তাছাড়া মুমূর্ষু বা সাধারণ রোগীর জন্য এই রাস্তাগুলো খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। রাস্তাগুলো পুণ:সংস্কার না হওয়ার কারণে শহর এলাকার মানুষ চরম ভোগান্তি আর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দীর্ঘদিন যাবৎ মেরামত না করার কারণে রাস্তাগুলো চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। যা বলাই বাহুল্য। তাই শহরের সকল এলাকার রাস্তাগুলোর সংস্কার এখন সময়ের দাবি।

্্রএ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর মেয়র নায়ার কবির এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পর্যায়ক্রমে সব রাস্তার সংস্কার কাজ করা হবে। এক এক করে রাস্তার কাজ করা হচ্ছে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০