শিরোনাম

নাসিরনগরে শুঁটকি তৈরীতে ব্যস্ত সময় পাড় করছে শ্রমিকরা

স্টাফ রিপোর্টার : | শুক্রবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৭ | পড়া হয়েছে 118 বার

নাসিরনগরে শুঁটকি তৈরীতে ব্যস্ত সময় পাড় করছে শ্রমিকরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার জেলে পাড়াতে শুঁটকি তৈরীতে ব্যস্ত সময় পাড় করছে শ্রমিকরা।
বছরের এ সময় আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় শুঁটকি তৈরিতে দিন-রাত কাজ করা যাচ্ছে জেলা পাড়ার কর্মব্যস্ত মানুষগুলো। এতে জেলে পাড়ায় উৎসবের আমেজ বইছে। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি হচ্ছে কীটনাশক মুক্ত নির্ভেজাল শুঁটকি।

হাওর বেষ্টিত এলাকা হওয়ায় মাছের আমদানী তুলনামূলক বেশি।


এ জন্য বিল থেকে কাঁচা মাছ প্রক্রিয়াজাত করে শুঁটকি প্রক্রিয়াজাত সম্পন্ন হওয়ার আগ পর্যন্ত জেলে পল্লীতে দিন-রাত কাজ করে হাজারো নারী-পুরুষ শ্রমিক। গুণগতমান ভালো হওয়ায় নাসিরনগর উপজেলায় তৈরি শুঁটকি জেলার গন্ডি পেরিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নেয়া হচ্ছে।

নাসিরনগর উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে দেখা যায়, বিলবালীঙ্গা, মেদীর বিল, আটাউরী, লঙ্গন সহ আশপাশের গ্রামগুলোতে শুরু হয়েছে মিঠাপানির মাছের শুঁটকি তৈরির কাজ। এ সব জেলে পল্লীর মানুষ কাঁচা মাছ সংগ্রহ করে শুঁটকি তৈরিতে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। শুঁটকি শুকানোর জন্য তৈরি হচ্ছে বাশেঁর মাচা। শৈল, গজার, পুঁটি, টেংরা, বোয়াল, বাইম দেশীয় প্রজাতির মাছ দিয়ে তৈরি হচ্ছে শুটকি।

স্থানীয় শুঁটকি ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা যায়, স্থানীয় পাইকারদের সহায়তায় এ অঞ্চলে উৎপাদিত শুঁটকি কিশোরগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিলেট, সুনামগঞ্জ, নরসিংদী ও রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাচ্ছে।

তারা আরো জানান, আশ্বিন-কার্তিক ও পৌষ মাস কাঁচা মাছ শুকানোর সঠিক সময়। আবহমান গ্রামবাংলার ঐতিহ্য শুঁটকি ভোজন রসিকদের যুগ যুগ ধরে রসনা তৃপ্ত করে আসছে আমাদের উৎপাদিত শুঁটকি।

উপজেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে শুঁটকি শুকানোর চাতল রয়েছে। পানি নামার সাথে সাথে বিলে ধরা পড়ছে দেশীয় প্রজাতির মাছ।
আর কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্পের কাজ চলছে কৃষি, মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের। যারা শুঁটকি উৎপাদন করে মূলত তাদের নিয়ে প্রত্যেক ইউনিয়নে দু’টি করে সিআইজি (২০ জনের একটি গ্রুপ) গঠন করা হয়েছে। শুঁটকির মান সঠিক রাখতে আমরা জেলেদের সব ধরনের সহযোগিতা করে যাচ্ছি।

কয়েকজন মৎসজীবীর সাথে কথা বলেন জানা যায়, প্রতি কেজি কাঁচা মাছ কিনতে খরচ হয় ৮০/৯০ টাকা। আর চার কেজি কাঁচা মাছ দিয়ে তৈরি হয় এক কেজি শুঁটকি। এক কেজি শুঁটকি পাইকারদের কাছে পাচঁশত/ছয়শত টাকা বিক্রি করা গেলে কেজি প্রতি সব খরচ বাধ দিয়ে লাভ ভাল হয়।

নাসিরনগর উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, এখানে সম্পূর্ণ ভেজাল মুক্ত প্রাকৃতিক উপায়ে শুঁটকি উৎপাদন করা হয়। মৎস্য অফিস শুঁটকি তৈরিতে সকল প্রকার সহযোগীতা করে যাচ্ছে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১