শিরোনাম

নবীনগর-রাধিকা সড়কটি হাইওয়ে রোড নির্মাণ নক্সা পরিবর্তনের দাবি, সহায় সম্পদ হারিয়ে পথে বসে যাবে অনেক পরিবার

নবীনগর প্রতিনিধি : | রবিবার, ০৬ মে ২০১৮ | পড়া হয়েছে 273 বার

নবীনগর-রাধিকা সড়কটি হাইওয়ে রোড নির্মাণ নক্সা পরিবর্তনের দাবি, সহায় সম্পদ হারিয়ে পথে বসে যাবে অনেক পরিবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর-রাধিকা সড়কটি হাইওয়ে সড়ক নির্মানে যে প্রকল্প হাতে নিয়েছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ সেটি বাস্তবায়ন হলে সহায় সম্পদ হারিয়ে পথে বসে যাবে অনেক পরিবার। জেলার নবীনগর অংশে নবীনগর থেকে রাধিকা পর্যন্ত সাড়ে উনিশ কিলোমিটার রাস্তায় কনিকাড়া থেকে শিবপুর পর্যন্ত অংশে কনিকাড়া গ্রামের ভিতর দিয়ে যাওয়ায় গ্রামের অর্ধেক বাড়িঘর, মসজিদ, মন্দির, খেলার মাঠ, ফসলী জমি বিনষ্ট হবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে কৃষক, অনেক পরিবার পথে বসে যাবে। এ সরকারি কাজে অধিগ্রহন করে কাজ করার নিময় থাকলেও এ ক্ষেত্রে তা মানা হচ্ছে না। জমি অধিগ্রহন হয়েছে কি না তাও জানে না গ্রামবাসি। বর্তমান রাস্তায় বাউশখাল ব্রীজের যে মুখ রয়েছে তা বাধ দিয়ে উল্টো দিক দিয়ে করা হচ্ছে এটি হলে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হবে কৃষক করিম মিয়ার তার কয়েক একর জমির উপর মৎস প্রকল্প ও ফসলী জমি একবারে শেষ হয়ে যাবে। যদি বর্তমান রাস্তার ব্রীজের মুখ ধরে কাজ করা হয় তবে তার ক্ষতির পরিমান কম হবে। অর্থাৎ এই হাইওয়ে রাস্তার জন্য পূর্বে যে সার্ভে করা হয়েছিল সেটি হলে গ্রামবাসি ও কৃষক কম ক্ষতিগ্রস্ত হবে। একটি স্বার্থনেশ্বী মহল ক্ষমতার প্রভাবে পুরাতন প্লানকে পরিবর্তন করে নতুন করে প্লান করায় বিরাট ক্ষতির সম্মূখিন হবে কনিকাড়া গ্রামের সাধারণ মানুষ। এ অবস্থায় জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে কনিকাড়া মৌজার বুড়ি নদীর ব্রীজ হতে বাউশখাল পর্যন্ত নতুন নক্সা পরিবর্তনের আবেদন জানিয়েছে গ্রামবাসি। কথা হয় গ্রামের করিম মিয়া, একরাম মিয়া, আশরাফ হোসেন, আহসান হাবিব, রফিকুল ইসলাম, আবদুল মান্নানসহ অনেকের সাথে তারা বলেন, দেশের উন্নয়নে বিকল্প পথে রাস্তা দিতে আমরা আগ্রহী, বিকল্প পথে রাস্তা হলে আমাদের ক্ষতি যেমন কম হবে তেমনি সরকারের খরচও কম হবে। তাই নতুন নক্সা পরিবর্তন করে আলোচনার মাধ্যমে বিকল্প পথে রাস্তা নির্মানের দাবি তাদের।

এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগের নবীনগরস্থ উপসহকারি প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ বলেন, যে ভাবে নক্সা করা হয়েছে সেই ভাবে কাজ চলছে।


এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বলেন, আবেদন পেয়েছি বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০