শিরোনাম

নবীনগরে ধর্ষিতার ইজ্জতের মূল্য ২ লাখ টাকা

| শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | পড়া হয়েছে 444 বার

নবীনগরে ধর্ষিতার ইজ্জতের মূল্য ২ লাখ টাকা

এবার সম্ভ্রম হারানো এক যুবতীর ইজ্জতের মূল্য দুই লক্ষ টাকা নির্ধারন করে দিলো সমাজ পতিরা।শালিশ বিচারের নামে গোপনে অাপোষ মিমাংসা করতে বাধ্য করে সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গ। অাজন্মকালের কলঙ্কটীকা নিয়ে ভূক্তভূগী তরুনীর পরিবারটি শালিশ বৈঠক কারীদের ভয়ভীতি ও হুমকি ধামকির বাধার কারনে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নিতে পারেনি।অভিযোগ রয়েছে অাপোষ মিমাংসার নামে জোর করে ষ্ট্যাম্প এ সই রাখার।
প্রশাসনকে জানালে কিংবা মুখ খুললে ভূক্তভূগী গরীব অসহায় মেয়েটিকে চরিত্রহীন অাক্ষায়িত করে পুরো পরিবারকে গ্রামছাড়া করা হবে বলেও হুমকি দানের অভিযোগ রয়েছে।
ঘটনাটি নবীনগর পৌর এলাকার খাজানগর গ্রামে।
ঐ গ্রামের লদী মিয়ার বাড়ির যুবতী কাজের মেয়েকে দুই বন্ধু মিলে ধর্ষন করার অভিযোগ করে।

ঘটনাটি গত রবিবার (১৮সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায়।


ওই যুবতীর বাড়ি উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের গাজিরকান্দি গ্রামে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,পৌর এলাকার খাজানগর গ্রামের সরল খার ভাগনী সংসারের অভাব অনটনের কারনে উপজেলার খাজানগর গ্রামে লদি মিয়ার বাড়িতে কাজের মেয়ে হিসাবে কাজ করছিলো।ঘটনার দিন বাড়ির পাশে কলা বাগানে শুকানো কাপড় আনতে যাওয়ার সময় পাশের বাড়ির সত্তর মিয়ার ছেলে মোজাম্মেল ও লদী মিয়ার ছেলে আবু বক্কর তাকে ধরে মূখে চাপ দিয়ে আবু বক্করের ঘরে নিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষন করে।ওই ধর্ষিতা তার মামা সরল খা কে ঘটনাটি জানায়।মামা সরল খা, ধর্ষক দুই বন্ধুর অভিভাবক কে ঘটনাটি জানালে তারা তা ধামাচাপা দেয়ার জন্য মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সরল খার বাড়িতে ওই ধর্ষিতার মায়ের উপস্থিতিতে মীমাংসার জন্য বসে । সালিশী সভায় ওই দুই বন্ধু অনুপস্থিত থাকায় মীমাংসা না হওয়ার কারনে ওই যুবতীর মা অজ্ঞান হয়ে পড়ে।অবশেষে বৃহস্পতিবার রাতে সরল খার বাড়িতে ঘরের দরজা বন্ধ করে সালিশী সভা বসে।সালিশী সভায় ওই দুই বন্ধুকে ধর্ষনের অভিযোগ প্রমানীত হওয়ায় মাতাব্বর গন ২ লক্ষ টাকা জরিমানা করে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০