শিরোনাম

নবীনগরে ধর্ষণের শিকার তরুণীর আত্মহত্যা!

ডেস্ক ২৪ | শনিবার, ০৪ জুন ২০১৬ | পড়া হয়েছে 956 বার

নবীনগরে ধর্ষণের শিকার তরুণীর আত্মহত্যা!

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় এক তরুণী (১৮) আত্মহত্যা করেছেন। পরিবার বলছে, মেয়েটি এক যুবকের হাতে ধর্ষণের শিকার হন। এরপর স্থানীয় লোকজন চাপ দিলেও বংশগত বৈষম্যের কারণে যুবকটি বিয়েতে রাজি হননি। এর জেরেই এই আত্মহত্যা। মেয়েটি নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউপির শ্রীঘর গ্রামের বাসিন্দা।
পরিবার ও গ্রামবাসীর ভাষ্যমতে, গত সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে একই গ্রামের এক যুবক মেয়েটিকে নিজ বাড়ির পাশে নিয়ে ধর্ষণ করেন। মেয়েটির বড় ভাই টের পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে তাঁকে উদ্ধার করেন। পরে বিষয়টি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য আবদুল মান্নানসহ অন্যদের জানানো হয়। ইউপি সদস্যসহ অন্যরা বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করেন। তাঁরা দুজনকে বিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেন। কিন্তু মেয়েটি দাস বংশের, আর ছেলেটি সরকার বংশের হওয়ায় ছেলের পরিবার ওই প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এতে পরদিন সকালে কীটনাশক বড়ি খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন মেয়েটি। পরে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
ইউপি সদস্য আবদুল মান্নান বলেন, ‘মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে তাঁর পরিবার আমাদের কাছে অভিযোগ করে। পরে মেয়েটিকে বিয়ের জন্য ছেলেটির ভাইদের প্রস্তাব দিয়েছিলাম। কিন্তু তাঁরা রাজি না হওয়ায় মেয়ে আত্মহত্যা করেছেন।’
অভিযুক্ত যুবকের বড় ভাই বলেন, ধর্ষণের সঙ্গে তাঁর ভাই জড়িত নন। তিনি দাবি করেন, পরিবারের অত্যাচারের কারণেই মেয়েটি আত্মহত্যা করেছেন।
নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ আহমেদ দাবি করেন, মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন—এমন কথা পরিবারের কেউ পুলিশকে জানায়নি। তা ছাড়া ধর্ষণের কোনো আলামত সুরতহাল প্রতিবেদনে পাওয়া যায়নি।
মেয়েটির বাবা প্রথম আলোকে বলেন, অসহায়, গরিবও দাস বংশের হওয়ায় তাঁর মেয়েকে বিয়ে করতে রাজি হয়নি ছেলেটির পরিবার। এরপর নবীনগর থানায় গেলে পুলিশ অপমৃত্যুর মামলা নিয়েছে মাত্র। ধর্ষণের ঘটনা তারা এড়িয়ে যেতে চাইছে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০