শিরোনাম

দক্ষিণ আফ্রিকাই সিরিজ জিতল

স্পোর্টস ডেস্ক : | রবিবার, ১১ নভেম্বর ২০১৮ | পড়া হয়েছে 206 বার

দক্ষিণ আফ্রিকাই সিরিজ জিতল

টানা ৭ হারের পর শুক্রবার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জিতেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু স্বস্তির সেই জয়ের ধারাটা ধরে রাখতে পারল না অসিরা। আজ হোবার্টে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচেই আবার পরাজয়ের স্বাদ গিলতে হয়েছে তাদের। তিন সেঞ্চুরির ম্যাচটিতে ৪০ রানে জিতে ৩ ম্যাচের সিরিজটিওি ২-১ ব্যবধানে জিতে নিয়েছে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা।

দক্ষিণ আফ্রিকার ৫ উইকেটে ৩২০ রানের জবাবে অস্ট্রেলিয়া ৯ উইকেটে করতে পেরেছে ২৮০ রান। ম্যাচে সেঞ্চুরি হয়েছে ৩টি। যার দুটি সেঞ্চুরি করেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ব্যাটসম্যান ডেভিড মিলার ও অধিনায়ক ফ্যাফ ডু প্লেসি। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সেঞ্চুরি করেছেন শন মার্শ। এই সেঞ্চুরি পার্থক্যই যেন গড়ে দিয়েছে ম্যাচের ভাগ্য।


হোবার্টে টস জিতে প্রথমে বোলিং নেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। শুরুতে তার সিদ্ধান্তকে যৌক্তিকও প্রমাণ করেন মিশেল স্টার্ক ও মার্কাস স্তোইনিস। ২৬ রানের মধ্যেই তারা ফিরিয়ে দেন দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ওপেনার কুইন্টন ডি কক (৪) ও রেজা হেন্ড্রিক্সকে (৮)। এরপর ৫৫ রানের মাথায় স্টার্ক ফিরিয়ে দেন মারকরামকেও (৩২)।

কিন্তু এরপরই ডেভিড মিলার ও ডু প্লেসির পাল্টা প্রতিরোধ। প্রথমে প্রতিরোধ। তারপর করেছেন শাসন। চতুর্থ উইকেটে দুজনে মিলে গড়েন ২৫২ রানের জুটি। অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার দ্বৈরথে এটা যেকোনো উইকেটেই সর্বোচ্চ রানের জুটি। রেকর্ড এই জুটি গড়ার পথে ডু প্লেসি খেলেছেন ১২৫ রানের ইনিংস। ১১৫ বলের ইনিংসটিতে ২টি ছক্কা ও ১৫টি ৪ মেরেছেন তিনি।

তাণ্ডবে তার চেয়েও এককাঠি সরেস ছিলেন ডেভিড মিলার। মারকাটারি ব্যাটিংয়ের সুবাদে ‘কিলার-মিলার’ উপাধি পেয়ে যাওয়া মিলার ১০৮ বলে খেলেছেন ক্যারিয়ার সেরা ১৩৯ রানের ইনিংস। অসাধারণ ইনিংসটিতে তিনি সাজান ৪টি ছক্কা ও ১৩ চারের মারে।

তাদের এই জুটিই দক্ষিণ আফ্রিকাকে এনে দেয় ৩২০ রানের নির্ভরযোগ্য পুঁজি। শেষ পর্যন্ত পুঁজিটাকে নির্ভরযোগ্য প্রমাণও করেছেন প্রোটিয়া বোলাররা। শন মার্শের সেঞ্চুরি এবং মার্কাস স্তোইনিসের ৬৩ রানের ইনিংসের পরও ২৮০ রানের বেশি করতে পারেনি স্বাগতি অস্ট্রেলিয়া।
৩২১ রানের লক্ষ্য তাড়ায় অস্ট্রেলিয়াও ৩৯ রানেই হারিয়ে ফেলে ৩ উইকেট। এরপর তারাও ঘ্রুরে দাঁড়ায় চতুর্থ উইকেট জুটিতে। কিন্তু মার্শ-স্তোইনিস ডু প্লেসি-মিলার হতে পারেননি। তারা গড়েন ১০৭ রানের জুটি। স্তোইনিসকে ফিরিয়ে দিয়ে এই জুটি ভাঙেন প্রিটোরিয়াস। প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে স্তোইনিস ৪ ছক্কা ও ৫ বারে ৭৫ বলে করেন ৬৩ রান।

এরপর অ্যালেক্স ক্যারিকে নিয়ে ৮০ রানের জুটি গড়েন মার্শ। তাকে ফিরিয়ে দিয়ে এই জুটিও ভাঙেন প্রিটোরিয়াস। ৭ চার ও ৪ ছক্কায় ১০২ বলে ১০৬ রান করে ফেরেন মার্শ। তার বিদায়ের পরও ক্যারি ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল মিলে তরী তীরে ভেড়ানোর চেষ্টা চালান। কিন্তু তাদের সেই চেষ্টা বিফল করে দিয়েছেন বর্ষিয়ান ডেল স্টেইন।

তাদের দুজনকেই ফিরিয়েছেন স্টেইন। ক্যারি ৪১ বলে ৪২ ও ম্যাক্সওয়েল ২৭ বলে করেন ৩৫ রান। এই দুজনের বিদায়ের পর অস্ট্রেলিয়ার বাকি ব্যাটসম্যানরা এসেছেন আর ফিরেছেন গেছেন! কাগিসো রাবাদার তোপের মুখে দাঁড়াতেই পারেনি। সফরকারীরা তাই ৪০ রানের অনায়াস জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে। দুর্দান্ত সেঞ্চুরির সুবাদে ম্যাচ সেরার পুরস্কারটির পাশাপাশি সিরিজ সেরার পুরস্কারটিও জিতে নিয়েছেন ডেভিড মিলার।

দুই দলের একমাত্র টি-টোয়েন্টিটি ১৭ নভেম্বর।

সংক্ষিপ্ত স্কের :
দক্ষিণ আফ্রিকা : ৫০ ওভারে ৩২০/৫
অস্ট্রেলিয়া : ৫০ ওভারে ২৮০/৯

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১