শিরোনাম

তৃতীয় ব্যাটসম্যান সাজঘরে

স্পোর্টস ডেস্ক | শুক্রবার, ০৬ অক্টোবর ২০১৭ | পড়া হয়েছে 143 বার

তৃতীয় ব্যাটসম্যান সাজঘরে

প্রথম উইকেটের জন্য অপেক্ষা করতে হয় প্রায় ৫৪ ওভার। রুবেলের হাত ধরে দ্বিতীয় উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ। প্রথম উইকেট শিকার করা শুভাশিষের দারুণ বোলিংয়ে তৃতীয় উইকেটের দেখা পেয়েছে মুশফিকের দল। দিনের শেষ সেশনের খেলা চলছে। তবে, বেশ ভালোভাবেই এগুচ্ছে টস হারা স্বাগতিকরা।

এ রিপোর্ট লেখা অবধি প্রোটিয়ারা ৩ উইকেটে ২৮৮ রান তুলেছে। উইকেটে আছেন প্রথম টেস্টের সেঞ্চুরিয়ান হাশিম আমলা (১৭, সঙ্গী ডু প্লেসিস।
তামিম ইকবাল-সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতি মেনে নিয়ে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। স্বাগতিকদের হয়ে ওপেনিংয়ে নামেন ডিন এলগার, আইডেন মার্কারাম। প্রথম টেস্টে এই জুটি ১৯৬ রান তুলেছিল। এলগার ১৯৯ রানে আর অভিষিক্ত মার্কারাম ৯৭ রানে আউট হয়েছিলেন। দ্বিতীয় ম্যাচেও এই দুই ওপেনার ভোগায় বাংলাদেশকে। দক্ষিণ আফ্রিকা সবশেষ দুইশ রানের উদ্বোধনী জুটি পেয়েছিল ২০০৮ সালের জুলাইয়ে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লর্ডসে ২০৪ রানের জুটি গড়েছিলেন গ্রায়েম স্মিথ ও নিল ম্যাকেঞ্জি। ৯ বছর পর তাদের টপকে গেলেন মার্কারাম-এলগার জুটি।


ইনিংসের ৫৪তম ওভারে শুভাশিষের করা বলে এলগার তালুবন্দি হন মোস্তাফিজের। তার আগে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে এলগার চলতি বছর হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন। পাশাপাশি টেস্ট ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরিও হাঁকিয়েছেন (১১৩)। বিদায়ের আগে এই ওপেনার ১৫২ বলে ১৭টি বাউন্ডারি হাঁকান। দলীয় ২৪৩ রানের মাথায় প্রথম উইকেটের পতন ঘটে। মাত্রই দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামা আরেক ওপেনার মার্কারাম ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে বোল্ড হন। রুবেলের বলে বোল্ড হওয়ার আগে মার্কারাম ১৮৬ বলে ২২টি চারের সাহায্যে করেন ১৪৩ রান। দলীয় ২৭৬ রানের মাথায় স্বাগতিকদের দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে।
দলীয় ২৮৮ রানের মাথায় স্বাগতিকদের তৃতীয় ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফেরেন। তেমবা বাভুমাকে (৭) উইকেটরক্ষক লিটন দাসের গ্লাভসবন্দি করেন শুভাশিস।
চার পরিবর্তন নিয়ে ফিল্ডিংয়ে নামে মুশফিক বাহিনী। পেসার তাসকিনের জায়গায় খেলছেন রুবেল হোসেন। তামিমের জায়গায় সৌম্য সরকার। মিরাজের জায়গায় তাইজুল আর পেসার শফিউলের জায়গায় খেলছেন শুভাশিস রায়। প্রথম সেশন শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার রান দাঁড়ায় ২৯ ওভারে বিনা উইকেটে ১২৬। এলগার লাঞ্চে যান ৭২ রান নিয়ে, ৫৪ রান নিয়ে তার সঙ্গী হন মার্কারাম। দ্বিতীয় সেশনে ২৭ ওভারে ওঠে ১৩০ রান। চা বিরতির সময় দক্ষিণ আফ্রিকার রান ১ উইকেটে ২৫৬। মারক্রাম ব্যাটিংয়ে ছিলেন ১৩৫ রানে, আর আমলা ছিলেন ১ রান নিয়ে।
এর আগে পচেফস্ট্রুমে ৩৩৩ রানের বিশাল ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। মাত্র ৯০ রানে গুটিয়ে যায় দ্বিতীয় ইনিংস। ১০ বছর আগে ইনিংসে একশ’র নিচে অলআউট হয়েছিল বাংলাদেশ। তাই ব্লুমফন্টেইনে ব্যাটসম্যানদের সামনে অগ্নিপরীক্ষাই অপেক্ষা করছে। ব্লুমফন্টেইনে এর আগে একটি টেস্টই খেলেছিল বাংলাদেশ। ওই ম্যাচের ফলাফল স্মরণ না করাই ভালো। ইনিংস ব্যবধানে হেরেছিল সফরকারীরা। সেবারই দ. আফ্রিকায় শেষবার টেস্ট সিরিজ খেলেছিলেন সাকিব-তামিম-মুশফিকরা।
বাংলাদেশ: ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), তাইজুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, শুভাশিস রায়।
দক্ষিণ আফ্রিকা: ডিন এলগার, আইডেন মার্কারাম, হাশিম আমলা, তেমবা বাভুমা, ফাফ ডু প্লেসিস (অধিনায়ক), কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), আন্দিল ফেহলুকাওয়ো, ওয়েইন পার্নেল, কেশব মহারাজ, ক্যাগিসো রাবাদা, ডুয়েন ওলভিয়ার।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০