শিরোনাম

জয়ের জন্য শেষ দিনে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৮ উইকেট

| বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | পড়া হয়েছে 189 বার

জয়ের জন্য শেষ দিনে বাংলাদেশের প্রয়োজন ৮ উইকেট

সাম্প্রতিক সময়ে রানখরায় ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। অধিনায়কের দায়িত্ব কাঁধে আসার পর তার ওপর চাপ আরো বেড়ে যায়। সেই চাপের মধ্যেই সাড়ে আট বছর পর আজ ১৪ নভেম্বর বুধবার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পেলেন তিনি। ঢাকায় অভিষেক টেস্টে খেলতে নেমে ফিফটি তুলে নিয়েছেন মোহাম্মদ মিঠুন।

রিয়াদ-মিঠুনের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে ৬ উইকেটে ২২৪ রান নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসের ২১৮ রানের লিড এবং দ্বিতীয় ইনিংসের ২২৪ মিলে জিম্বাবুয়েকে ৪৪৩ রানের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে বাংলাদেশ।


টার্গেট তাড়া করতে নেমে চতুর্থ দিনের খেলা শেষে ২ উইকেটে ৭৬ রান তুলেছেন জিম্বাবুয়ে। জয়ের জন্য আগামীকাল ১৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার শেষ দিনে তাদের আরো ৩৬৭ রান করতে হবে। হাতে আছে ৮ উইকেট। আর এই ৮ উইকেট তুলে নিলেই প্রত্যাশিত জয় পাবে বাংলাদেশ দল।

জিম্বাবুয়েকে ফলোঅন না করিয়ে ২১৮ রানের লিড নিয়ে বুধবার দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। দিনের শুরুতে মাত্র ২৫ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে যায় স্বাগতিকরা। দলের এমন কঠিন পরিস্থিতে হাল ধরেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

পঞ্চম উইকেটে অভিষিক্ত মোহাম্মদ মিঠুনকে সাথে নিয়ে ১১৮ রানের জুটি গড়েন রিয়াদ। তাদের এই জুটিতে খেলায় ফেরে বাংলাদেশ। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্টে খেলতে নেমে ১১০ বলে চার বাউন্ডারি এবং একটি ওভার বাউন্ডারিতে ৬৭ রান করেন মিঠুন।

দলীয় ১৪৩ রানে মিঠুনের বিদায়ের পর সাত নম্বরে খেলতে নেমে সুবিধা করতে পারেননি আরিফুল হক। তিনি ফেরেন মাত্র ৫ রানে। তবে সপ্তম উইকেট ‍জুটিতে মেহেদি হাসান মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে ৭৩ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন রিয়াদ। এই জুটিতে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন বাংলাদেশ দলের এই অধিনায়ক। ১২২ বলে চারটি বাউন্ডারি এবং দুটি ছক্কার সাহায্যে সেঞ্চুরি (১০১) পূর্ণ করার পর ইনিংস ঘোষণা দেন রিয়াদ। ২৭ রানে অপরাজিত থাকেন মিরাজ।

৪৪৩ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়েছিল জিম্বাবুয়ে। মাত্র ১২ রানে দুই দফায় ক্যাচ তুলে দেন দুই ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও ব্রায়েন চারি। কিন্তু দুই দফায় ক্যাচ মিস করেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

বিনা উইকেটে ৬৮ রান করা জিম্বাবুয়ে এরপর দুই রানে হারায় ২ উইকেট। হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকে ক্যাচ তুলতে বাধ্য করেন মিরাজ। অন্য ওপেনার ব্রায়ান চারিকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তাইজুল ইসলাম।

ইনিংসের নবম ওভারের মধ্যে একবার করে লাইফ পান মাসাকাদজা ও ব্রায়ান চারি। ঢাকা টেস্টে অভিষিক্ত পেসার সৈয়দ খালেদ আহমেদের বলে গালিতে ক্যাচ দেন মাসাকাদজা। সহজ ক্যাচটি তালুবন্দি করতে পারেননি মিরাজ। ব্যক্তিগত ৫ রানে নতুন জীবন পাওয়া মাসাকাদজা শেষ পর্যন্ত ফেরেন ২৫ রান করে।

তার আগে শূন্য রানে ব্রায়ান চারিকে জীবন দেন মিরাজ। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে তাইজুল ইসলামের বলে স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন চারি। কিন্তু মিরাজ সেই ক্যাচটি মুঠোবন্দি করতে পারেননি। যে কারণে শূন্য রানে নতুন জীবন পাওয়া চারি ফেরেন ৪৩ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
বাংলাদেশ : ৫২২/৭ ডিক্লেয়ার এবং ২২৪/৬ ডিক্লেয়ার
জিম্বাবুয়ে : ৩০৪/৯ এবং ৭৬/২ (অসমাপ্ত)

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১