শিরোনাম

ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রকৌশলীর স্ত্রীকে হয়রানীর অভিযোগ

নবীনগর প্রতিনিধি | রবিবার, ০৩ নভেম্বর ২০১৯ | পড়া হয়েছে 501 বার

ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রকৌশলীর স্ত্রীকে হয়রানীর অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে প্রকৌশলীর স্ত্রীকে নানাভাবে হয়রানি করার অভিযোগ ওঠেছে। এর ফলে ওই প্রকৌশলীর সংসার টেকানোই এখন দায় হয়ে পড়েছে। অভিযুক্ত ইমতিয়াজ আহম্মদ কাউছার জেলার নবীনগর উপজেলার বড়াইল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী প্রকৌশলী মোঃ গোলাম হাক্কানী গত শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তবে ওই ছাত্রলীগ নেতা জানিয়েছেন বিষয়টি ‘মিটমাট’ হয়ে গেছে।

প্রকৌশলী হাক্কানীর লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের মে মাসে তিনি নবীনগর উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়নের বীরগাঁও গ্রামের এক মেয়েকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর তিনি জানতে পারেন তার স্ত্রীর সাথে বড়াইল ইউনিয়নের ফকিরবাড়ি এলাকার ছাত্রলীগ নেতা কাউছারের পূর্বপরিচয় রয়েছে। তার স্ত্রী কোনো কাজে বাড়ির বাইরে বের হলে কাউছার তাকে উত্যক্ত করে। স্ত্রীর কাছ থেকে বিষয়টি জানার পর গত ৪ অক্টোবর কাউছারের সাথে যোগাযোগ করেন হাক্কানী। এ সময় কাউছার তাকে হত্যা করে তার স্ত্রীকে অপহরণ করবেন বলেও হুমকি দেন।
হুমকির পর তিনি তার স্ত্রীকে তার বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেন। কাউছারের কারণে হাক্কানীর সংসার এখন ভাঙার উপক্রম হয়েছে। এ ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের কাছেও লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।
প্রকৌশলী গোলাম হাক্কানী জানান, সংসটারটা টিকিয়ে রাখার জন্য নিরুপায় হয়ে আমি থানায় অভিযোগ করেছি। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি চাই আর কারো দাম্পত্য জীবনে যেন এমন না ঘটে।
তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতা ইমতিয়াজ আহম্মদ কাউছার জানান, বিয়ের আগে ওই মেয়ের সাথে আমার পরিচিত ছিল, বিয়ের পরে মাঝে-মাঝে আমাকে নক করত। খুব একটা কথা হতো না। দুই মাস তিন মাস পর হয়তো একটু কথাবার্তা হতো। ওর ফোন নাম্বারের কললিস্ট বের করে আমার নাম্বার পেয়েছে, সেজন্য আমাকে সন্দেহ করছে। ওনি (হাক্কানী) আমাকে ভুল বুঝছেন। ওনার সাথে কথা হয়েছে, ভুল বোঝাবুঝি শেষও হয়েছে। ওনি অভিযোগ করবেন এমন কথা ছিলনা।


ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভন বলেন, অভিযোগটি পেয়েছি। সভাপতির সাথে কথা বলে অভিযোগটি যাচাই-বাছাই করে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) আতিকুর রহমান জানান, অভিযোগটির তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১