শিরোনাম

কসবায় শিশু খাদিজা হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও স্মারক লিপি

প্রতিনিধি | বৃহস্পতিবার, ১০ মার্চ ২০১৬ | পড়া হয়েছে 661 বার

কসবায় শিশু খাদিজা হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে  শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও স্মারক লিপি

বৃস্পতিবার (১০ মার্চ) সকালে কসবায় শিশু খাদিজা মনি  হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল,মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও স্মারক লিপি পেশ করেছে স্থানীয় সিডিসি স্কুলসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।
সিডিসি স্কুলের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিলটি কসবা পৌর সদরের প্রধান প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিন শেষে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারক লিপি প্রেরণ করে। প্রতিবাদ সমাবেশে সিডিসি স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও কসবা প্রেসক্লাব সভাপতি মো. সোলেমান খানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন: উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শহিদুল্লাহ, উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ন আহ্বায়ক এমজি হাক্কানী, কসবা টি আলী ডিগ্রি কলেজ উপাধ্যক্ষ একে আজাদ, কসবা প্রেসক্লাব সহসভাপতি নেপাল চন্দ্র সাহা ও ইমাম প্রি-ক্যাডেট স্কুলের অধ্যক্ষ মো. জয়নাল আবেদিন।
তাছাড়া শিশু খাদিজা মনি হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীতে স্থানীয় স্বাধীনতা চত্ত্বরে হিউম্যান রাইটস রিভিউ সোসাইটি, কসবা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, কসবা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও ইমাম প্রি-ক্যাডেট স্কুলের শিক্ষক অভিভাবক, শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন: উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ন আহবায়ক এমজি হাক্কানী, উপজেলা যুবদল সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল উদ্দিন, সাংবাদিক মো. সোহরাব হোসেন, কসবা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক কেবিএম হুমায়ুন কবির, কসবা পুরাতন বাজার ব্যবসায়ী কমিটির সাধারন সম্পাদক মো. জিয়াউল হুদা শিপন, প্রভাষক মো. জয়নাল আবেদিন প্রমুখ।
ঘটনার বিবরনে প্রকাশ, গত শনিবার (৫মার্চ) সকালে কসবা সীমান্ত কমপ্লেক্সের ভাড়াকৃত বাসা থেকে স্থানীয় একটি মক্তবে যাওয়ার পথে চিপস কিনে দেয়ার কথা বলে তার চাচা সম্পর্কিত মাসুদ মিয়ার নেতৃত্বে অপরহণ করে নিয়ে যায়। বেলা ৮টার সময় অপহরণকারী মাসুদ মিয়া খাদিজার মা রুনা আক্তারের মোবাইল ফোনে বলে তার সন্তান মাদ্রাসায় গিয়েছে কিনা দেখার জন্য। রুনা আক্তার মাদ্রাসায় গিয়ে খাদিজার কোন সন্ধান না পেয়ে তার সহপাঠী মায়মুনা আক্তারের কাছে মেয়ের বিষয়ে জানতে চায়। মায়মুনা জানায়, খাদিজার মামা মাসুদ মিয়া তাকে চিপস কিনে দেয়ার কথা বলে নিয়ে। ওই দিন বিকেলে রুনা আক্তারকে অপরিচিত নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে তার নিকট দেড় লাখ টাকা খাদিজার মুক্তিপন দাবী করে। অন্যথায় তার শিশুকে সে ফেরত পাবে না। ঘটনার দিন বিকেলে খাদিজা মনির মা রুনা আক্তার বাদী হয়ে কসবা থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করে। পুলিশ অপহরণ কারীর কললিস্ট ধরে উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের লতুয়ামুড়া গ্রামের সমরাজ মিয়ার ছেলে মাসুক মিয়া (২০) কে আটক করেছে। গ্রেফতারকৃত মাসুদকে পুলিশ ৫দিনের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। তার তথ্যানুসারে ঘটনায় জড়িত সিলেট জকিগঞ্জ মুন্সিবাজার গ্রামের আবদুস শহীদের পুত্র তামীম মিয়া (২৫), উপজেলার গোপিনাথপুর গ্রামের হোসেন সরকারের পুত্র কিবরিয়া মিয়া (২২) ও একই গ্রামের ইব্রাহীম মিয়া (২৭) পুলিশ গ্রেফতার করে এবং ইমামপাড়াস্থ বাবরু মিয়ার পাঁচ তলা ভবনের খোপরি থেকে খাদিজার গলা কাটা লাশ ব্যবহৃত ছুড়ি ও রক্তমাখা জামা কাপড় উদ্ধার করেছে।


আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০