শিরোনাম

সরকারি কাজে বাঁধা ও র‌্যাবের সদস্যদের মারধরের অভিযোগে

আশুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যানের ছেলেসহ গ্রেপ্তার-৩

আশুগঞ্জ প্রতিনিধি | শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 177 বার

আশুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যানের ছেলেসহ গ্রেপ্তার-৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে সরকারি কাজে বাঁধা ও র‌্যাবের সদস্যদের মারধরের অভিযোগে আশুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের ছেলে আরিফুর রহমানসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা করেছে। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া আরিফুর রহমান আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সীর ছেলে। বাকিরা হলেন উপজেলার চর-চারতলা ইউনিয়নের মুন্সী বাড়ির সবুর মুন্সীর ছেলে আরিয়ান সাবের ওরফে চঞ্চল-(২৬), উপজেলার আড়াইসিধা ইউনিয়নের সালাউদ্দিন মিলন-(৩৩)।


স্থানীয় লোকজন, র‌্যাব ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার রাতে র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের দুই সদস্য সরকারি কাজে আশুগঞ্জ বাজারের মুন্সী মার্কেটের সামনে যান। বিপনী বিতানের সামনে র‌্যাব সদস্যরা তাদের মোটরসাইকেল রাখেন। সেসময় সেখানে আরিফুরসহ কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন। আরিফুর র‌্যাব সদস্যদের বিপনী বিতানের সামনে থেকে মোটর সাইকেলের সরাতে বলেন। তারা নিজেদের র‌্যাবের সদস্য বলে পরিচয় দিলে আরিফুর রেগে যান। আরিফুর রহমান তার সঙ্গে থাকা চাচাতো ভাই আরিয়ান ও আড়াইসিধার সালাহউদ্দিনসহ ৪-৫জন মিলে র‌্যাব সদস্যদের মারধর করেন। এতে র‌্যাব সদস্যরা আহত হন। মারধরের শিকার হয়ে তারা র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পে ফিরে যান।

বিষয়টি জানতে পেরে র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা রাতেই সেখানে অভিযান চালান। সে সময় আরিয়ান ও সালাহউদ্দিনকে আটক করেন র‌্যাব সদস্যরা। অভিযানকালে তারা মুন্সী মার্কেটে থাকা ট্রাস্ট ব্যাংক ও ইসলামি ব্যাংক লিমিটেডের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পে নিয়ে যান৷ সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে ঘটনার সাথে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের ছেলে আরিফুর সম্পৃক্ত বলে নিশ্চিত হয়। বুধবার মধ্যরাতেই আরিফুর রহমানকে আটক করেন র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের পক্ষ থেকে সরকারি কাজে বাধা ও র‌্যাব সদস্যকে মারধের ঘটনায় আশুগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

বুধবার রাতেই আহত র‌্যাব সদস্যদের ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাহমুদ বলেন, সরকারি কাজে বাধা ও র‌্যাব সদস্যদের মারধরের অভিযোগে মামলা দেওয়া হয়। মামলায় আটক তিনজনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১