শিরোনাম

আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল : অভিযোগকারীর মুক্তিযোদ্ধার পরিচয় ভুয়া

নিউজ ডেস্ক | বৃহস্পতিবার, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬ | পড়া হয়েছে 603 বার

আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল : অভিযোগকারীর মুক্তিযোদ্ধার পরিচয় ভুয়া

আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের মো: আউয়াল মিয়া মুক্তিযোদ্ধা পরিচয়ে নবীনগর বগডহর গ্রামের ফুল মিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করেন। বাদী মো: আউয়াল মিয়া ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা বলে নবীনগরে অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় সমাজসেবা ও মুক্তিযোদ্ধা অফিস সূত্রে জানাযায়, উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের মো: আউয়াল মিয়া মুক্তিযোদ্ধার পরিচয় দিয়ে মামলার বাদী হওয়ায় মুক্তিযোদ্ধা অফিসসহ এলাকায় আলোচনার ঝড় উঠেছে। মামলার বাদী মৃত ওমর আলী ছেলে মো: আউয়াল মিয়ার জাতীয় পরিচয় পত্রের সাথে কোন মিল না থাকায় স্বয়ং মুক্তিযোদ্ধাদের অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন। জাতীয় পরিচয় পত্রে তার নাম হলো মো: আব্দুল আউয়াল খন্দকার পিতা মৃত আব্দুল গফুর খন্দকার যাহা শ্রীরামপুর গ্রামে খন্দকার বাড়ি হিসেবে পরিচিত। অভিযোগ রয়েছে তিনি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার কাগজ ব্যবহার করে মুক্তিযোদ্ধার ভাতার জন্য স্থানীয় সমাজ সেবা অফিসে অবেদন করেন। কাগজ পত্র গরমিল থাকায় তার অবেদনটি বাতিল হয়। যিনি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তিনি ভারতীর তালিকা ১২১ পৃষ্টায় ক্রমিক নং ৩৩০৩৩ ও বাংলাদেশ গেজেট (অতিরিক্ত) ৩৩৮৩ নং গেজেট অনুযারী কাগজপত্র সঠিক থাকায় ২০০৫ সাল হতে মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাচ্ছেন। তার নাম আবদুল আউয়াল পিতা মৃত উমর আলী গ্রাম শ্রীরামপুর। বর্তমানে তিনি নায়ারনপুরে বসবাস করছেন।
মামলার বাদী অভিযুক্ত মুক্তিযোদ্ধা মো: আউয়াল মিয়া ওরফে আব্দুল আউয়াল খন্দকার বলেন, আমিই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা, আমার বিরুদ্ধে যারা কথা বলছে তারা সঠিক মুক্তিযোদ্ধা নয়। মুক্তিযোদ্ধা অফিসের শিশু মিয়ারা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। জাতীয় পরিচয় পর্ত্রে একটি নাম মুক্তিযোদ্ধা সনদে আরেকটি নাম এই বিষরে তিনি আরো বলেন, বাবা সহ আমাদের বাড়ীর সকলের ২টি করে নাম রয়েছে।
বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে যিনি ভাতা পাচ্ছেন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা মো: আউয়াল মিয়া বলেন, আমি মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে ১০ বছর যাবৎ ভাতা পাচ্ছি। আমি যুদ্ধ করেছি তা সবাই জানেন, আম্ার কাগজ ব্যবহার করে যিনি ভাতার জন্য অবেদন করেছেন তাকে আমি চিনিনা।
এই ব্যাপারে শ্রীরামপুর ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নসু মিয়া বলেন, মানবতা বিরোধী মামলার বাদী মো: আউয়াল মিয়া মুক্তিযোদ্ধা নয়। যিনি ভাতা পাচ্ছেন তিনিই প্রকত মুক্তিযোদ্ধা ,আমরা একসাথে যুদ্ধ করেছি।


উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার এমদাদুল হক বলেন, মামলার বাদী কাগজপত্রে যাচাই বাচাইয়ে মুক্তিযোদ্ধার প্রমান পাওয়া যায়নি। মো: আউয়াল মিয়া পিতা মৃত উমর আলী একজন মুক্তিযোদ্ধা। তার কাগজপত্র সঠিক থাকায় সে ২০০৫ সাল থেকে মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাচ্ছে।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০