শিরোনাম

আজ সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শেখ মোঃ শাহনেওয়াজের ২৩তম মৃত্যুবার্ষিকী

স্টাফ রিপোর্টার : | মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ | পড়া হয়েছে 76 বার

আজ সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শেখ মোঃ শাহনেওয়াজের ২৩তম মৃত্যুবার্ষিকী

আজ ১৬ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠণিক সম্পাদক জনপ্রিয় ছাত্রনেতা শহীদ শেখ শাহনেওয়াজ এর ২৩তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৯৫ সালের এই দিনে তৎকালীন বি এন পি সরকারের অত্যাচার, নির্যাতন এবং বেপরোয়া দুর্নীতি ও একতরফা নির্বাচন করে ক্ষমতায় থাকার নীল নকশার বিরুদ্ধে তৎকালীন প্রধান বিরোধী দল আওয়ামী লীগ সমমনা সকল দলকে নিয়ে তিনদিন ব্যাপি লাগাতার হরতাল ডেকেছিল। এই দিন তৎকালীন সরকারি দলের ছাত্র সংগঠণ ছাত্রদলের সশস্ত্র হামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের টি.এ.রোডস্থ তোফায়েল আজম মঠের গোড়ায় নির্মম হত্যাকা-ের শিকার হন শেখ মোঃ শাহনেওয়াজ। তার স্মরণে ও বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের উদ্যোগে সকালে মরহুমের নিবাস শহরের কাজীপাড়া মৌলভীহাটিস্থ কবরে শ্রদ্ধাঞ্জলী পুষ্পস্তবক অর্পন, বাদ জোহর মৌলভীহাটি মসজিদ সহ বিভিন্ন মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল এবং সন্ধ্যায় পুরাতন জেল রোডস্থ সুর সম্রাট দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন সরোদ মঞ্চে শাহনেওয়াজ স্মরণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠানের কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।

শেখ মো: শাহনেওয়াজ হত্যা ঘটনার খবর পেয়ে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী (বর্তমান প্রধান মন্ত্রী) ও আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা এই হত্যাকাণ্ডের তীব্র প্রতিবাদ করেন এবং মরদেহ ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করেন। ঢাকায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শেখ মো: শাহনেওয়াজ এর প্রথম জানাজা শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা শেষে  শেখ হাসিনা সেদিন থেকে সরকার পতন না হওয়া পর্যন্ত লাগাতার অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন। সেই আন্দোলন সফল করতে গিয়ে আরও অনেক আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীর প্রাণ ঝরেছিল এবং পরে বিএনপি সরকারের পতন ঘটেছিল। 


শেখ মো: শাহনেওয়াজ হত্যা ঘটনায় তার শোকে একবছর পর তার বড়ভাই এডভোকেট শাহজাহান মারা যান। পুত্র শোক ভুলতে না পেরে উনার বাবা এডভোকেট শেখ মোঃ আবদুল কাদের মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে মারা যান। দুই ছেলে এবং স্বামীকে হারিয়ে কাঁদতে কাঁদতে শেখ মো: শাহনেওয়াজের মা অন্ধ হয়ে কিছুদিন পর মারা যান। দুঃখের বিষয় যারা সেদিন শান্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে অশান্ত করে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডটি ঘটিয়েছিল তাদের বিন্দু পরিমাণ সাজাও হয়নি। ২৩ বছর পরও এখনো হত্যাকারীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। 

শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসে শেখ মো: শাহনেওয়াজ এর বেঁচে থাকা একমাত্র ভাই শাহজালালকে একটি ভাল চাকরি দিয়েছেন এবং তিনি এখন প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ে এ চাকরিতেই বহাল আছেন। ১৯৯৭ সালের ১৭ অক্টোবর তৎকালীন যুব ক্রীড়া ও সংস্কৃতি মন্ত্রী  বর্তমানে সড়ক মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক সফরসূচীতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে এসে প্রধান ডাকঘরের সম্মুখে শেখ মো: শাহনেওয়াজ এর স্মৃতিকে টিকিয়ে রাখতে একটি স্মৃতি সৌধের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে  সুদৃশ্য স্মৃতি সৌধ নির্মাণের আশ্বাস দিয়ে যান । কিন্তু অতীব দু:খের বিষয় হলো, ২১ বছরেও এই ওয়াদা বাস্তবায়ন হয়নি। অপরদিকে, এলাকাবাসী স্ব উদ্যোগে তাৎক্ষণিক কাজীপাড়া মৌলভীহাটি সড়কের নাম পরিবর্তন করে শহীদ শেখ মো: শাহনেওয়াজ সড়ক এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া -৩ নির্বাচনী আসনের সংসদ সদস্য ও আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী গত বছর  কাজীপাড়া-মেীলভীপাড়া মধ্যবর্তী খালের উপর সংযোগ রক্ষাকারী ফ্লাট ব্রীজটির নাম শহীদ শেখ মো: শাহনেওয়াজ সেতু নাম করণ করে মরহুমের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়েছেন।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০