শিরোনাম

জাগোনিউজ আয়োজিত জাতিসংঘে বাংলা চাই ক্যাম্পেইন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তারা

অন্য ভাষা থেকে বাংলা হাজার গুণ সমৃদ্ধ

ষ্টাফ রিপোর্টার : | বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ | পড়া হয়েছে 222 বার

অন্য ভাষা থেকে বাংলা হাজার গুণ সমৃদ্ধ

‘বাংলা ভাষার যে উৎপত্তি, বাংলা ভাষার যে ব্যাঞ্জনা, বাংলা ভাষার যে প্রয়োগ, বাংলা ভাষার যে ব্যাখা সেটি অন্যান্য ভাষা থেকে হাজার গুণ সমৃদ্ধ। একমাত্র ভাষা বাংলা যার জন্য বিশ্বের বুকে বাঙালি জাতিকে রক্ত দিতে হয়েছে। ১৯৯৯ সালে ইউনেস্কো শুধু-শুধুই বাংলাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। শুধু সংখ্যা ও গুণগত মান বিচার করে নয়, বাংলা ভাষা সবদিক থেকে সমৃদ্ধ বলেই ইউনেস্কো স্বীকৃতি দিয়েছিল’। মঙ্গলবার (২৭.০২.২০১৮) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে ‘জাতিসংঘে বাংলা চাই’ ক্যাম্পেইনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আগত অতিথিরা তাদের বক্তব্যে এসব কথাগুলো বলেন।

মাতৃভাষা বাংলাকে জাতিসংঘের ৭ম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে ‘জাতিসংঘে বাংলা চাই’ দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে অনলাইনে ভোট দিয়ে ভাষা সৈনিক মুহম্মদ মুসা এ ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন। এরপরে একে একে জাতিসংঘে বাংলা চাই দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে ভোট দেন অনুষ্ঠানের আমন্ত্রিত অতিথিরা। দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজটুয়োন্টিফোর ডটকম এর উদ্যোগে মাসব্যাপী চলা এ ক্যাম্পেইনের সহযোগিতায় রয়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান ‘প্রাণ’।


ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি খ. আ. ম রশিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথির বক্তব্য রাখেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মীর আবদুর রাজ্জাক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সাহেদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. রেজাউল কবির, সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এড. তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মনজুরুল আলম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পী।

জাতিসংঘের প্রতি প্রশ্ন রেখে বক্তারা আরও বলেন, শতাংশ হিসেবে ভাষাকে যাচাই করার সুযোগ নেই। আরবিকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করা হলে বাংলাকে কেনো অন্তর্ভূক্ত করা হবে না ? জাতিসংঘের ৭ম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে বাংলাকে অবশ্যই অন্তর্ভূক্ত করতে হবে। এটি এখন শুধু বাংলাদেশিদের নয়, পুরো বাঙালি জাতির দাবি হয়ে উঠেছে। মায়ের ভাষা রক্ষা করার জন্য যারা জীবন দিয়েছিল, রক্ত দিয়েছিল এরকম ইতিহাস কেবল বাঙালি জাতিই সৃষ্টি করেছিল। এ জাতির কারণেই বাংলাকে ইউনেস্কো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল। আজকে আমরা সকলে মিলে ভোটাভুটির পাশাপাশি যদি বাংলা ভাষার চর্চা করি, গবেষণা করি, জার্নাল লিখি, বই লিখি এবং বাংলাকে বিশ্বের বুকে প্রচারের চেষ্টা করি তাহলেই আমরা সফল হতে পারবো। অনুষ্ঠানে বক্তারা জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে বাংলা ভাষার স্বীকৃতির উদ্যোগ নেয়ায় জাগো নিউজ ও প্রাণ গ্রুপকে ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতিসংঘে বাংলা চাই ক্যাম্পেইন নিয়ে একটি ভিডিওচিত্র প্রজেক্টরের মাধ্যমে প্রদর্শিত হয়। পুরো অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক ও সংস্কৃতিকর্মী মো. মনির হোসেন। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণ থেকে ‘জাতিসংঘে বাংলা চাই’ দাবির সমর্থনে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুণরায় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সভায় মিলিত হয়। এতে সাংবাদিকসহ নানা শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন।

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১